কানাডায় করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা সাত হাজার ছাড়ল


কানাডা থেকেবিশেষ প্রতিবেদক ।

কানাডায় করোনা ভাইরাস অর্থাৎ কোভিড-১৯ এ মৃত্যুর সংখ্যা সাত হাজার ছাড়িয়ে এখন দাঁড়ালো ৭,২৯৫ জন। আক্রান্তের পরিমাণ নব্বই হাজার নয়শ’ সাতচল্লিশ জন।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মৃত্যুর সংখ্যা কমলেও কানাডায় দিন দিন ভয়াবহ আকার ধারণ করছে। প্রতিদিনই মারা গেছে দুই শ’র উপরে। এখনো মৃত্যুর হার ১৩ শতাংশ। এই মৃত্যুর পরিমাণ কুইবেকের মন্ট্রিয়ল এবং অন্টারিও’র টরন্টো শহরেই বেশি। তবে অর্ধেকের চেয়ে বেশি ক্যুইবেক প্রদেশে। অর্থাৎ ৪,৪৬১ জন।

কানাডার ভ্যাংকুভারে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনায় মারা গেলেও এখন ভ্যাংকুভার ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। তুলনামূলক ব্রিটিশ কলম্বিয়ায় মৃতের সংখ্যা মাত্র ১৩০ জন। মৃত্যুর বেশিরভাগই বয়স্ক ব্যক্তি এবং ওল্ড কেয়ার হোমগুলিতেই পরিমাণ বেশি।

উল্লেখ্য, কানাডায় এ পর্যন্ত দশ জন বাংলাদেশি করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করেছেন। খবরে প্রকাশ, মৃত্যু সংখ্যা এভাবে বাড়তে থাকলে আবার নতুন করে লকডাউনের মুখোমুখি হতে পারে কানাডার বৃহত্তর দুটি শহর টরন্টো এবং মন্ট্রিয়ল। কারণ, অনেকেই লকডাউনের নিয়মকানুন মানছেন না। দেখা যাচ্ছে, টরন্টোর পার্কগুলোতে লোকজনে গিজগিজ করছে। কোথাও সোশাল ডিস্টেনসের বালাই নেই। গত শনিবার ডাউন টাউনের ট্রিনিটি পার্কে হাজারো মানুষের সমাগম ঘটে। পার্কে এতো মানুষের সমাগমের খবর শুনে সেখানে ছুটে যান টরন্টোর সিটি মেয়র জন টরি। কিন্তু তিনি নিজেই মাস্ক পরে যাননি। পরে তিনি এক বিবৃতি দিয়ে ক্ষমা চেয়েছেন।

পরে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে জনপ্রিয় পার্কগুলোতে সোশাল ডিসটেনসের জন্য গোল গোল বৃত্তাকার করে দেয়া হবে এবং তা কার্যকরী হচ্ছে।

এদিকে আগামী ২১ জুন কানাডা-আমেরিকার বর্ডার খুলে দেয়ার কথা রয়েছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *