বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
যশোর বোর্ডের এসএসসি বাংলা ২য় পত্রের এমসিকিউ পরীক্ষা স্থগিত জুমা’র দিনে গোসল ও সুগন্ধির ব্যবহার সম্পর্কে যা বলেছেন বিশ্বনবি ইলিশ মাছের গড় আয়ু কত? নবজাতক শিশুর যত্নে, জন্মের পর করনীয় চুল এবং ত্বকের যত্নে থাকুক টক দই লন্ডনে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী বাবার লাশ উঠানে, রুমাল হাতে ছেলে পরীক্ষা কেন্দ্রে ঘুমধুম সীমান্তে আবারও গোলাগুলির শব্দ পা দিয়ে লিখে এসএসসি পরীক্ষা দিলেন মানিক সাবেক উপ প্রধানমন্ত্রী প্রয়াত মোয়াজ্জেম হোসেনকে গার্ড অব অনার প্রদান গুয়েতেমালায় কনসার্টে পদদলিত হয়ে নিহত ৯, আহত ২০ কারাগারে বসে এসএসসি পরীক্ষা দিলেন ৩ আসামি পরীক্ষাকেন্দ্রে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে ৫ শিক্ষককে অব্যাহতি করোনায় আক্রান্ত সিইসি হাবিবুল আউয়াল বেনাপোল সীমান্তে মাদকসহ আটক ১ সরকার সব দলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনে বিশ্বাসী : সেতুমন্ত্রী রাঙ্গাকে অব্যাহতির কারণ জানালেন জাপা মহাসচিব নড়াইলে বাংলা প্রথম পত্র পরীক্ষায় দেয়া হলো দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্ন! সারাদেশে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু রানির শেষকৃত্যে অংশ নিতে লন্ডনের পথে প্রধানমন্ত্রী
Uncategorized

এদের ঈদ নেই

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৩ জুলাই, ২০১৫
  • ৩৫ দেখা হয়েছে

83615_151
নদীভাঙনে গৃহহারা মানুষের মনে নেই ঈদ-আনন্দ। নেই কেনাকাটা। কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার অবদা বাঁধ ও কেচি সড়কের দুপাশে বসতি স্থাপন করে বসবাস করছে এ ভাসমান মানুষরা। সরজমিনে দেখা গেছে, খোলা আকাশের নিচে মাথার ওপর ছেঁড়া পলিথিন বা দু-চারটা টিন দিয়ে চারদিকে কাপড় বা খড়ের বেরা দিয়ে কোন মতে ছাপরা দিয়ে ভয়াবহ কষ্টময় জীবনযাপনসহ চরম নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিনাতিপাত করছে। অর্থাৎ তাঁবুর বাসস্থানের মতোই তাদের জীবনের আনন্দ। কখন জানি এখান থেকে উঠে যেতে হয়। ঈদের দিনেও সন্তানের মুখে দুই মুঠো খাবার তুলে দিতে কাটাতে হয় ব্যস্ত এসব মানুষকে। একজনের আয়ে আহারের ব্যবস্থা হয় না বলে পুরুষের পাশাপাশি নারীদেরও নদী থেকে খড়কুটো কুড়িয়ে বিক্রি, অন্যের বাড়িতে গৃহস্থালি কাজসহ বিভিন্ন কাজ করতে হয় তাদের। সেখানে নতুন পোশাকের স্বপ্ন তো সোনার হরিণ। ঈদ প্রসঙ্গে কথা হয় রাজারভিটা অবদা বাঁধে বসবাসরত শিশু সুমি (৮), বাবলু (৬), মিমি (১০) জানায়, ঈদে তাদের দেয়া হয় না নতুন কোন জামাকাপড়। এমনকি ঈদের দিন তাদের ঘরে সেমাই ও পোলাও মাংস রান্না হয় না। রমনাঘাট সড়কের ওপর বসতি স্থাপন করা ৫৫ বছর বয়সী রহিমা বলেন, বারবার নদীভাঙনের ফলে জন্মের পর থেকেই বাঁধ বা সড়কের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে যাযাবরের জীবনযাপন করছি। আর এখন কাজ করি শুধু পেট বাঁচানোর জন্য তাই ঈদ বলে আলাদা কিছু নেই।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো খবর

সম্পাদক ও প্রকাশক

মুহম্মদ মিজানুর রহমান চৌধুরী

© All rights reserved by Crimereporter24.com
রি-ডিজাইনঃ Cumilla IT Institute
themesba-lates1749691102