শিরোনাম

ট্রাম্পের ইউটিউব চ্যানেল বন্ধ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।

গুগুল মালিকানাধীন ইউটিউব প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের চ্যানেল সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে। তাদের নিয়ম ভেঙে সন্ত্রাসকে উস্কে দেওয়ার অভিযোগে মঙ্গলবার তার একটি ভিডিও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

ইউটিউবের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সম্ভাব্য সহিংসতার আশঙ্কায় আমরা ডোনাল্ড ট্রাম্পের চ্যানেলে আপলোড করা নতুন ভিডিও সরিয়ে দিয়েছি। চ্যানেলটিতে সাময়িকভাবে নতুন কোনও কিছু আপলোড করা যাবে না। এ নিষেধাজ্ঞা অন্তত আগামী সাত দিন বহাল থাকবে।

এর আগে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, টুইটার ও ইন্সটাগ্রাম ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়। দেশটির পার্লামেন্ট ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন হামলার ঘটনার পরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় তৎপর হন ট্রাম্প। বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশ্যে ভিডিও বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘আমি তোমাদের ভালোবাসি।’ এর পরপরই ফেসবুক ও টুইটার কর্তৃপক্ষ ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়। আর ভিডিও সরিয়ে নেয় ইউটিউব।

পার্লামেন্ট ভবনে ট্রাম্প সমর্থকদের নজিরবিহীন হামলা ও বিক্ষোভের ঘটনার মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়লেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ফেসবুক ও টুইটার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পোস্টের মাধ্যমে সহিংসতা উস্কে দেয়া হয়েছে। এমনই অভিযোগ করছে ব্যবহারকারীরা। এজন্য ট্রাম্পের টুইটার ১২ ঘণ্টা এবং ফেসবুক ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে টুইটার এক্ষেত্রে আরও কঠোর বার্তা দিয়েছে। কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যদি ট্রাম্প বিতর্কিত টুইটগুলো মুছে না ফেলে তবে তার টুইটার অ্যাকাউন্ট সবসময়ের জন্য মুছে ফেলা হবে।

অপরদিকে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ট্রাম্পের পোস্ট সরানোর বিষয়ে বিবিকে জানিয়েছে, ওয়াশিংটনে সহিংস বিক্ষোভ দেশটির জন্য অপমানজনক। আমরা সবসময় উস্কানি নিষিদ্ধ করি এবং সহিংসতা বন্ধের আহ্বান জানাই। এজন্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের পোস্টটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তার অ্যাকাউন্ট ২৪ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে চলমান সহিংসতার ঝুঁকি হ্রাস করবে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *