শিরোনাম

মেয়াদ শেষে ক্ষমতায় থাকার সুযোগ রহিত হচ্ছে

বিশেষ প্রতিবেদক ।

উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদে মেয়াদ শেষে নানা ছলে ক্ষমতায় থাকার সুযোগ রহিত করে বিদ্যমান আইনসমূহের সংশোধন করা হচ্ছে। এজন্য বিদ্যমান আইন পর্যালোচনা করে স্থানীয় সরকার কমিশন গঠন করার প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

গতকাল শনিবার স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এই তথ্য জানান। তিনি বলেন, এ সপ্তাহেই কমিশন গঠন হয়ে যাবে। কমিশনের সুপারিশের আলোকে স্থানীয় সরকার বিভাগ প্রয়োজনীয় আইন সংশোধন করবে। নির্বাচন কমিশনের সুপারিশ বিষয়ে প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার আইনসমূহ তৈরি সংশোধন ইত্যাদি স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতাধীন। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনসমূহ কীভাবে সুষ্ঠু করা যায় সেসব বিষয়ে আইন প্রণয়ন করতে পারে।

আরেক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে ইতিমধ্যে উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ কার্যক্রমে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত কমিটি সুপারিশ দিয়েছে। এই সুপারিশও কমিশনে পাঠানো হবে। স্থানীয় সরকার বিভাগ মেয়াদের অতিরিক্ত সময় যাতে কেউ ক্ষমতায় থাকতে না পারে সে ধরনের সুযোগ রহিত করে আইন করবে, তবে কমিশনের অনুমোদন অবশ্যই নেওয়া হবে।

বর্তমানে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন সংশোধন করে মেয়াদ শেষে নির্বাচন না হলে সেখানে প্রশাসক নিয়োগের বিধান করা হয়েছে। বর্তমানে এরকম প্রশাসক রয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে। সাধারণত মামলা-মোকদ্দমা করে স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা দীর্ঘদিন ধরে ক্ষমতায় থাকেন।

সিনিয়র সচিব জানান, সব স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের জন্য একীভূত অভিন্ন আইন করার চিন্তাভাবনা রয়েছে। তবে কমিশন কি সুপারিশ করে সেটি দেখে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান যথা—পরিচালনার জন্য অভিন্ন আইন করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইতিমধ্যে এ আইনের প্রাথমিক খসড়াও চূড়ান্ত করেছে কমিশন সচিবালয়। খসড়া এ আইনের নাম দেওয়া হয়েছে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান নির্বাচন আইন, ২০২০। এই আইনের কপিও স্থানীয় সরকার বিভাগে পাঠানো হয়। যদিও এটি নির্বাচন কমিশনের কাজ নয় বলে বলছেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব।

দেশে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের পাঁচটি পৃথক আইন রয়েছে যেগুলো হলো—স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন-২০০৯, উপজেলা পরিষদ আইন-১৯৯৮, জেলা পরিষদ আইন-২০০০, স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন-২০০৯ ও স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন-২০০৯। এই আইনগুলোয় নির্বাচন পরিচালনার জন্য বিভিন্ন অধ্যায় ও ধারা সংযুক্ত রয়েছে। ঐসব আইন থেকে নির্বাচনসংক্রান্ত বিধানাবলি আলাদা করতে স্বতন্ত্র আইন করা হবে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *