শিরোনাম

প্রকৃতিবন্ধু মুকিত মজুমদার বাবুর জন্মদিন আজ

সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক ।

প্রকৃতিবন্ধু মুকিত মজুমদার বাবু ২৫ অক্টোবর ঢাকার এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। প্রকৃতি অন্তঃপ্রাণ মানুষটি ইমপ্রেস গ্রুপের সফল প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক। ব্যবসায়িক পরিচয় ছাপিয়ে দেশ-বিদেশে তিনি প্রকৃতিবন্ধু নামেই সমধিক পরিচিত। প্রকৃতির সঙ্গে রয়েছে তাঁর নিবিড় সখ্য। হৃদয় দিয়ে তিনি অনুভব করেন প্রকৃতির আনন্দ-উচ্ছ্বাস, দুঃখ-বেদনা। অন্তর দিয়ে অনুধাবন করেন প্রকৃতির ভাষা। জন্মভূমির প্রতি আজন্ম ঋণই তাঁকে করে তুলেছে প্রকৃতির প্রতি দায়বদ্ধ। নতুন প্রজন্মের কাছে তিনি দূষণমুক্ত সুস্থ-সুন্দরপ্রাণ-প্রাচুর্যে ভরা বাংলাদেশ উপহার দেয়ার প্রত্যয়ে কাজ করে যাচ্ছেন। স্বপ্ন বাস্তবায়নে ২০০৯ সালে প্রতিষ্ঠা করেন প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন। পরিবেশ, জীববৈচিত্র্য, বন ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ এবং জলবায়ু পরিবর্তন জনিত অভিঘাত মোকাবিলা ও অভিযোজন সম্পর্কিত গণসচেতনতা সৃষ্টিতে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ চ্যানেল আইতে ধারাবাহিক প্রামাণ্য অনুষ্ঠান ‘প্রকৃতি ও জীবন’। ইতোমধ্যেই দর্শকনন্দিত অনুষ্ঠানটির ৩৪৫টি পর্ব প্রচার হয়েছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

মুকিত মজুমদার বাবু নিয়মিত লিখছেন বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে। প্রকৃতির প্রতিদায়বদ্ধতা ও চেতনার বিষয়টি প্রাধান্য পাচ্ছে তাঁর লেখনীতে। সম্পাদনা করছেন ‘প্রকৃতি ও জীবন’ শিরোনামে জাতীয় দৈনিকে রঙিন একটি পূর্ণাঙ্গ পাক্ষিকপাতা। প্রতিবছর একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হচ্ছে তাঁর প্রকৃতি বিষয়কগ্রন্থ। উল্লেখযোগ্য গ্রন্থেও মধ্যে রয়েছে, ‘আমার অনেক ঋণ আছে’, ‘আমার দেশ আমার প্রকৃতি’, ‘আমার রূপসী বাংলা’, ‘সবুজ আমার ভালোবাসা’, ‘স্বপ্নের প্রকৃতি’ ইত্যাদি। তাঁরই তত্ত্বাবধানে প্রকাশিত হচ্ছে ত্রৈমাসিক পত্রিকা ‘প্রকৃতি বার্তা’।

তৃণমূল পর্যায়ে সচেতনতা সৃষ্টিতে আয়োজন করছেন ব্যতিক্রমী প্রকৃতিমেলা। এর পাশাপাশি ‘প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন’ থেকে নির্মাণ করছেন বিভিন্ন টক শো, ডকুমেন্টরি ও টেলিফিল্ম। প্রকাশিত হচ্ছে প্রকৃতি বিষয়ক ডিভিডি, লিফলেট ও ক্যালেন্ডার। প্রকৃতি সংরক্ষণে বিশেষ অবদানের জন্য প্রতি বছর ফাউন্ডেশন থেকে দেয়া হচ্ছে ‘প্রকৃতি সংরক্ষণপদক’। বন্যপ্রাণী অবমুক্তকরণ, পাখিশুমারী, জাতীয় চিড়িয়াখানা ও উদ্ভিদ উদ্যানে গাছের পরিচিতিফলক সংযুক্তিকরণ, পরিবেশ ও প্রকৃতি বিষয়ক বিভিন্ন গবেষণা কার্যক্রম এগিয়ে নেয়া এবং পরিবেশ সচেতনতা বিষয়ক স্কুল প্রোগ্রাম করাসহ বিভিন্ন গণসচেতনতামূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে তিনি প্রকৃতি সংরক্ষণে কাজ করে যাচ্ছেন। এই করোনাকালেও তাঁর কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

মুক্তিযোদ্ধা মুকিত মজুমদার বাবু পরাধীনতার শৃঙ্খল ছিঁড়তে ১৯৭১ সালে যুদ্ধ করেছেন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে। দেশ স্বাধীন হলেও যুদ্ধ তাঁর আজও চলমান। এ যুদ্ধ সবুজে সবুজে দেশটিকে ভরিয়ে তুলতে, সুন্দও প্রকৃতিতে সুস্থ জীবন গড়তে। পরিবেশ বিষয়ক বহুমাত্রিক কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ‘ফোবানা এ্যাওয়ার্ড-২০১৬’, জাতীয় পরিবেশ পদক-২০১৫’, ‘ঢাকা আহছানিয়া মিশন চাঁদ সুলতানা পুরস্কার-২০১৫’, ‘বিজনেস এক্সিলেন্সি এ্যাওয়ার্ড সিঙ্গাপুর-২০১৪’, ‘বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড ফর ওয়াইল্ড লাইফ কনজারভেশন-২০১৩’, ‘এইচএসবিসি-দি ডেইলি স্টার ক্লাইমেট অ্যাওয়ার্ড-২০১২’ সহ আরো বিভিন্ন পুরষ্কার ও সম্মাননা অর্জন করেছেন তিনি ও তাঁর প্রতিষ্ঠান ‘প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশন’।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *