শিরোনাম

ভুল থেকে শিখেছি : নিউইয়র্কে সাকিব

ক্রীড়া প্রতিবেদক ।

ভুল করেছিলেন সাকিব আল হাসান। সেই ভুল থেকে শিক্ষা নিয়েছেন তিনি। ভবিষ্যতে এমন ভুল আর করবেন না বলে প্রতিজ্ঞাও করেছেন। এমনকি এ ধরনের ভুল যেন কেউ না করে সেই উপদেশও দিয়েছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কে এক সুধী সমাবেশে প্রবাসী বাংলাদেশি সুধীজনদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন সাকিব আল হাসান।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

সাকিব আল হাসান যখন এই কথাগুলো বলছিলেন ঠিক তার কয়েকঘণ্টা পর তার ওপর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) এক বছরের নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়ে সেটি না জানিয়ে সাকিব আইসিসি দুর্নীতি দমন আইনের ২ দশমিক ৪ দশমিক ৪ ধারা ভাঙেন। ২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি ও ২৭ আগস্ট তিনি আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগের জিজ্ঞাসাবাদে ভুল শিকার করেন। শাস্তি হিসেবে সাকিবকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করে আইসিসি, যার মধ্যে এক বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা।

২৮ অক্টোবর আইসিসির বহিষ্কারাদেশের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। ফলে চাইলে পরদিন থেকেই সাকিবের মাঠে নামতে আর কোনো বাধা থাকছে না। তবে সাকিব গত প্রায় এক বছর যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন। সম্প্রতি দ্বিতীয় কন্যা সন্তানের বাবা হয়েছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে সাকিব আল হাসান বলেন, গত এক বছরে পরিবারকে সময় দিয়েছি। খেলায় ব্যস্ত থাকায় প্রথম সন্তানকে সময় দিতে পারিনি। কিন্তু দ্বিতীয় সন্তান সেটা পেয়েছে। তিনি বলেন, বাসায় বেবিসিটিং করেছি। আর অবশ্যই ক্রিকেটকে মিস করেছি।

সাকিব আল হাসান জানান, আগামী ৪ নভেম্বর দেশে ফিরছেন তিনি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সঙ্গে তার সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রয়েছে। নিয়মতান্ত্রিক উপায়েই দ্রুত ক্রিকেটে ফিরবেন তিনি। একইসঙ্গে তিনি বলেন, টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপসহ সামনের দিনগুলোতে বাংলাদেশ বিশ্ব ক্রিকেটে ভালো করবে বলেই তার বিশ্বাস।

নিউইয়র্কের শো’টাইম মিউজিক অ্যান্ড প্লে (এসএমপি) এই সুধী সমাবেশের আয়োজন করে। সাকিবকে নিয়ে এটি ছিল তাদের চতুর্থ আয়োজন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে আমন্ত্রিত অতিথিরা অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে সাকিব আল হাসানকে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন। নানান প্রশ্ন করেন বিভিন্ন বিষয়ে।

নিউইয়র্কের কুইন্স প্যালেস মিলনায়তনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এসএমপি’র কর্ণধার আলমগীর খান আলম। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ছিলেন সাংবাদিক শামীম আল আমিন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ক্রিকেটের গর্ব সাকিব আল হাসান তার বক্তব্যের শুরুতেই করোনা মহামারিতে গোটা বিশ্বজুড়ে যারা মারা গেছেন, তাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। স্মরণ করিয়ে দেন, করোনা এখনো মারাত্মক ঝুঁকি। সবাইকে সতর্ক থাকার কথা বলেন তিনি। দেশের জন্য ভালো খেলার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে সাকিব সবার কাছে দোয়া চান।

উল্লেখ্য, গত এক বছর খেলা থেকে দ‚রে থাকলেও করোনাকালে সাকিব আল হাসান সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন মানবতার সেবায়। নিলামে তুলেছেন নিজের বিশ্বকাপের ব্যাট। সাকিব আল হাসান ফাউন্ডেশন গঠন করে সুবিধাবঞ্চিতদের মাঝে খাবার বিতরণ ছাড়াও চিকিৎসকদের জন্য দিয়েছেন উন্নত মানের পিপিই-মাস্ক। এছাড়া সেবামূলক একটি প্রতিষ্ঠানকে অনুদান হিসেবে দিয়েছেন অ্যাম্বুলেন্স।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *