শিরোনাম

হাতিরঝিলে উদ্ধার হওয়া লাশটি চট্টগ্রামের বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রের

নিজস্ব প্রতিবেদক ।

রাজধানীর হাতিরঝিল থেকে উদ্ধার হওয়া হাত-পা বাঁধা লাশের পরিচয় মিলেছে। নিহত ঐ তরুণের নাম আজিজুল ইসলাম মেহেদী (২৪)। সে চট্টগ্রামের ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটির ইংরেজি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী। তার পরিবারের অভিযোগ, মেহেদী চট্টগ্রাম থেকে পাসপোর্ট তৈরির কাজে ঢাকায় এসেছিলেন। দালালদের খপ্পরে পরেই তিনি খুন হয়েছেন। তবে পুলিশ বলছে, তদন্ত শেষে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

সোমবার হাতিরঝিলের রামপুরা অংশের লেক থেকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায় পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার মর্গে গিয়ে নিহত ব্যক্তিকে আজিজুল ইসলাম মেহেদী বলে শনাক্ত করেন তার পরিবারের সদস্যরা। পরে এ বিষয়ে মামলা দায়ের করতে তারা হাতিরঝিল থানায় যান।

পরিবারের সদস্যরা জানান, মেহেদী চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার বাউরিয়া গ্রামের ফখরুল ইসলামের একমাত্র ছেলে। গত শনিবার বিকাল ৫টার দিকে চট্টগ্রাম থেকে পাসপোর্ট তৈরির কাজের কথা বলে ঢাকায় আসে সে। বনশ্রী এলাকায় এ বন্ধুর বাসায় ওঠে। রবিবার ভোরে বন্ধুর বাসা থেকে বের হওয়ার পর থেকেই মেহেদীর কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তার ফোন নম্বরও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছিল। সোমবার পুলিশের মাধ্যমে মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি জানতে পারেন পরিবারের সদস্যরা।

নিহতের খালাতো ভাই মো. শাকিল সাংবাদিকদের বলেন, মেহেদী লেখাপড়ার পাশাপাশি পরিচিতদের পাসপোর্ট তৈরির কাজ করে দিত। কে বা কারা তাকে এভাবে হত্যা করেছে তা বলতে পারছি না। তবে আমাদের ধারণা, সে পাসপোর্টের কাজে এসে দালালদের খপ্পরে পড়তে পারে। কোনো কারণে দালালের হাতেই তার মৃত্যু হয়েছে।

তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) হাফিজ আল ফারুক বলেন, বিষয়টি আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখছি। তদন্ত চলছে। আশাকরি দ্রুত রহস্য উদ্ঘাটন হবে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *