07bbf65218b2baff135f3365b1d4f4bf-Untitled-1
বিজ্ঞান লেখক, ব্লগার ও ব্যাংকার অনন্ত বিজয় দাশ হত্যা মামলায় ‘সন্দিগ্ধ আসামি’ ফটোসাংবাদিক ইদ্রিস আলীকে সাত দিনের রিমান্ড শেষে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) গতকাল সোমবার সকালে ইদ্রিসকে মহানগর হাকিম (আমলি আদালত-৩) ফারহানা ইয়াসমিনের আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাঁকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সিআইডির পরিদর্শক আরমান আলী সাত দিনের রিমান্ডে ইদ্রিস আলীর দেওয়া কিছু তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে এবং প্রয়োজনে তাঁকে আরও জিজ্ঞাসাবাদ ও রিমান্ড চাওয়া হতে পারে বলে জানান। আদালতকেও তিনি লিখিতভাবে বিষয়টি জানিয়েছেন।
ফটোসাংবাদিক ইদ্রিস আলী (২৪) দৈনিক সংবাদ ও সিলেটের স্থানীয় দৈনিক সবুজ সিলেট-এর আলোকচিত্রী। তাঁর বাড়ি সিলেট শহরতলির খাদিমপাড়া ইউনিয়নের ফতেগড় গ্রামে। ৭ জুন ইদ্রিসকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সিআইডি আটক করে। পরের দিন মামলার একজন ‘সন্দিগ্ধ আসামি’ দেখিয়ে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয় তাঁকে।
সিআইডির বিশেষজ্ঞ একটি দল ইদ্রিসকে ঢাকায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তবে সাত দিনের রিমান্ডে ইদ্রিসের কাছ থেকে মামলার তদন্ত অগ্রগতি হয়—এমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি বলে সিআইডি সূত্র জানায়।

বাহাদুর বেপারীআইন-আদালত
বিজ্ঞান লেখক, ব্লগার ও ব্যাংকার অনন্ত বিজয় দাশ হত্যা মামলায় ‘সন্দিগ্ধ আসামি’ ফটোসাংবাদিক ইদ্রিস আলীকে সাত দিনের রিমান্ড শেষে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) গতকাল সোমবার সকালে ইদ্রিসকে মহানগর হাকিম (আমলি আদালত-৩) ফারহানা ইয়াসমিনের আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাঁকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। মামলার...