10
নিজস্ব প্রতিবেদক ।
অফিস শেষে ফিরছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তার গাড়ি যখন রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন সুগন্ধার সামনে সিগনালে আটকে রয়েছে তখন দেখতে পেলেন আইন অমান্য করে কারো কারো গাড়ি উল্টা পথ দিয়ে চলাচল করছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।
তিনি গাড়ি থেকে নেমে সেখানে কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশকে ডাকলেন। উল্টা পথে চলা গাড়িগুলো আটকাতে নির্দেশ দিলেন। তাঁর উদ্যোগে পুলিশ সেখানে উল্টো পথে চলা গাড়ি ও মোটরসাইকেল আটকানো শুরু করল। এরপর তিনি সেখানে দুই ঘণ্টা ধরে দাড়িয়ে থেকে ট্রাফিক পুলিশের অভিযান পর্যবেক্ষণ করলেন।

তাত্ক্ষনিক অভিযানে ধরা খেলো সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী, সচিব, বিচারক, সরকারি দলের নেতা, পুলিশ ও সাংবাদিকদের গাড়ি। দুই ঘন্টায় ট্রাফিক পুলিশ ৫০টি যানবাহনকে মামলা ও জরিমানা করে। এর মধ্যে ৪০টিই সরকারি গাড়ি।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পুলিশের ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিকের রমনা অঞ্চলের সিনিয়ার এসি (জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার) মো. আলাউদ্দিন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, বিকাল চারটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত চলা অভিযানে ৫০টির মতো গাড়ির জরিমানা করা হয়েছে ও মামলা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৪০টিই সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের গাড়ি। অভিযান চলাকালে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মোসলেহউদ্দিনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2017/09/1033.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2017/09/1033-300x300.jpgজান্নাতুল ফেরদৌস মেহরিনজাতীয়
নিজস্ব প্রতিবেদক । অফিস শেষে ফিরছিলেন দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ। তার গাড়ি যখন রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন সুগন্ধার সামনে সিগনালে আটকে রয়েছে তখন দেখতে পেলেন আইন অমান্য করে কারো কারো গাড়ি উল্টা পথ দিয়ে চলাচল করছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। তিনি গাড়ি থেকে নেমে সেখানে কর্তব্যরত ট্রাফিক...