সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন
Uncategorized

এবার ঢাকায় কিশোরকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৫
  • ১১ দেখা হয়েছে

dhaka_155998
রাজধানীর হাজারীবাগে চুরির অভিযোগে মো. রাজা (১৭) নামে এক কিশোরকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগ, হাজারীবাগ থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আরজু মোবাইল ও ল্যাপটপ চুরির অভিযোগে রাজাকে পিটিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় বাসার সামনে ফেলে যান। পরে হাসপাতালে নেয়ার পর বিকেলে তার মৃত্যু হয়।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে হাজারিবাগ থানা পুলিশ। সোমবার রাত ৮ টা পর্যন্ত এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি বলে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানিয়েছেন ওই থানার ওসি (তদন্ত) খন্দকার মোহাম্মদ আলী। আটক তিনজনকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে বলেও জানান তিনি।

সম্প্রতি চুরির অভিযোগে সিলেটে শিশু শেখ সামিউল আলম রাজন ও বরগুনায় রবিউল নামের দুই শিশুকে হত্যা করা হয়। খুলনায় কাজ ছেড়ে দেওয়ায় নৃশংসভাবে খুন করা হয় শিশু রাকিবকে। সিলেট, খুলনা, বরগুনায় নির্যাতন চালিয়ে শিশু হত্যার ঘটনা নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড়ের মধ্যেই রাজধানীতে এ ঘটনা ঘটলো।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রাজার ফুফু রত্না বেগম ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, রাজা গণকটুলির ৪৬ নন্বর বাসায় থাকতো। পাশের বাসায় থাকেন হাজারিবাগ থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আরজু। সোমবার সকালে আরজু তার মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে রাজাকে বাসা থেকে নিজের বাসায় নিয়ে যান। সেখানে তাকে বেদম মারধর করে দুপুরের দিকে অজ্ঞান অবস্থায় বাসার সামনের রাস্তায় ফেলে যান।

স্থানীয়দের সহযোগিতায় রত্না রাজাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে বিকেল ৫টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

রাজার মা শামসুন্নাহার দুই বছর আগে মারা গেছেন এবং তার বাবা বাবুল হোসেন চোখের সমস্যা নিয়ে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বলে জানিয়েছেন রত্না বেগম। তিনি আরও জানান, মাদকে আসক্তি থাকায় রাজা মানসিকভাবে সুস্থ ছিল না।

অভিযোগ বিষয়ে ছাত্রলীগ নেতা মো. আরজু ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, রোববার রাত ৩ টার দিকে তিনি রাজাকে তার বাসায় উকি দিতে দেখেছেন। সকালে ঘুম থেকে ওঠে তিনি বাসার ৪টি মোবাইল ফোন ও একটি ল্যাপটপ চুরি হ্ওয়ার কথা শোনেন। এরপর সন্দেহবশত সোমবার সকালে রাজার বাসায় গিয়ে তার খোঁজ নিয়ে তাকে পাননি। কিছু সময় পর এলাকার এক ছেলে রাজাকে ধরে নিয়ে আসে। ঘটনাটি রাজার খালাতো ভাই শামীমকে জানানো হলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে রাজাকে মারধর করে।

তবে রাজার ফুফু রত্না বেগমের দাবি, খবর পেয়ে রাজার বড় বোন রেশমা আরজুর বাসায় ছুটে যান। তিনি আরজুর হাতে-পায়ে ধরে রাজাকে ছেড়ে দেওয়ার অনুরোধ জানালেও আরজু তাকে ফেরত দেননি।

শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো খবর

সম্পাদক ও প্রকাশক

মুহাম্মদ মিজানুর রহমান চৌধুরী

© All rights reserved by Crimereporter24.com
themesba-lates1749691102