শিরোনাম
শহর ও গ্রামের ব্যবধান কমাতে সরকার কাজ করছে : ইমরান আহমসরকার দেশকে আরো মর্যাদাপূর্ণ অবস্থানে নিতে কাজ করছে : শেখ হাসিনানারী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের (বীরাঙ্গনা) গেজেটভুক্তির লক্ষ্যে আবেদন আহ্বানকুমিল্লায় আড়াই বছরের শিশুর গলায় ছুরি ঠেকিয়ে মাকে ধর্ষণকুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগ নেতা রোশন আলীর বিরুদ্ধে মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগযারা দুর্নীতি করে ঐশ্বর্য গড়েন, তাদের ঘৃণা করা উচিত : মো: তাজুল ইসলামমুক্তিযোদ্ধাদের নামের পূর্বে ‘বীর’ লেখার বিধান করে গেজেট প্রকাশনারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের মূলহোতা এবার হত্যা মামলায় রিমান্ডেএখনো সুঅভিনেত্রী সুইটিমেসি-দেম্বেলের গোলে জুভেন্টাসকে হারালো বার্সা

৫০,০০০ রোহিঙ্গা বাংলাদেশী পাসপোর্টে

87694_x1
বিদেশে ৫০ হাজার রোহিঙ্গা কাজ করছে বাংলাদেশী পাসপোর্টে। রোহিঙ্গা হয়েও কৌশলে বাংলাদেশী পাসপোর্ট ব্যবহার করছে তারা। এতে করে বিদেশে শ্রম বাজারের একটি বিরাট অংশ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বাংলাদেশ।
গতকাল নগরীর একটি রেস্তরাঁয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি। মতবিনিময়কালে মন্ত্রী এসব তথ্য জানান।
মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশী পাসপোর্ট নিয়ে ৫০ হাজার রোহিঙ্গা বিদেশে কাজ করছে। এতে করে বাংলাদেশীদের শ্রম বাজার তারা দখল করে রেখেছে। পাশাপাশি ওখানে তারা যে অপকর্ম করছে তার দায় পড়ছে আমাদের ঘাড়ে।’ তিনি বলেন, ‘মাত্র কয়েক হাজার টাকার জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রোহিঙ্গাদের সনদ দিচ্ছেন। এতে করে দেশেরই ক্ষতি করছেন। মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা হিসাব করে দেখেছি মালয়েশিয়া যেতে ৬০ হাজার টাকা লাগে। তাহলে প্রাণ হাতে নিয়ে অবৈধভাবে সমুদ্রপথে কেন যেতে হবে?
এদিকে বর্তমান শ্রমবাজারের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ায় নতুন শ্রমবাজার তৈরির চেষ্টা করছেন বলেও জানান মন্ত্রী। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই দক্ষ শ্রমিক গড়ে তোলা প্রয়োজন বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের দক্ষ শ্রমিক তৈরিতে গুরুত্বারোপ করতে হবে। প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ শেষে সনদ অর্জন করে বিদেশে যেতে পারলে দাম আছে। অদক্ষ শ্রমিক বিদেশে গিয়ে কি লাভ?’ দক্ষ শ্রমিকের অভাবে তিনি চাহিদা থাকলেও প্রয়োজনীয় শ্রমিক যোগান দিতে পারছেন না বলেও জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সৌদি আরব ২০ হাজার শ্রমিক চেয়েছে। কিন্তু আমরা দিতে পারছি মাত্র তিন হাজার। কারণ আমাদের এর বেশি দক্ষ শ্রমিক নেই।’
এসময় তিনি বিদেশে কর্মরত শ্রমিকদের কেউ মারা গেলে কোন বিড়ম্বনা ছাড়াই সরকারি অনুদান যাতে তারা পান সেই ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, বিদেশে আমাদের অনেক শ্রমিক দুর্ঘটনায় মারা যান। আমরা তাদের অনুদান হিসেবে প্রাথমিকভাবে বিমানবন্দরেই ২৫ হাজার টাকা দেয়া হয়। মোট তিন লাখ টাকা দেয়ার কথা থাকলেও তাতে কিছুটা সময় লাগে। তবে এখন থেকে যাতে আর দেরি না হয় সেই ব্যবস্থা করব।
মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ইসহাক মিয়া, সাবেক মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক এম এ ছালাম, সিডিএ চেয়ারম্যান আব্দুচ ছালাম প্রমুখ।