শিরোনাম

৩৫০ চিকিৎসকের পদোন্নতি শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

1438522895
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে প্রায় ৩৫০ চিকিৎসকের পদোন্নতি দেয়া হবে। একইসঙ্গে তাদেরকে বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ ও জেলা হাসপাতালে বদলি করা হবে।

রবিবার ঢাকায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০১৫ উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

পদোন্নতির পর চিকিৎসকদেরকে রাজধানীর বাইরে গিয়ে সেবা দিতে মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। এ সময় তিনি দীর্ঘদিন যাবত ঢাকায় কর্মরত আছেন এমন চিকিৎসকদেরকে স্বেচ্ছায় রাজধানীর বাইরে বদলি হওয়ার আবেদন করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করার আহ্বান জানান।

স্বাস্থ্য মন্ত্রী বলেন, দেশের সকল জেলা হাসপাতালে আইসিইউ স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। এর ফলে আইসিইউ’র জন্য গ্রামের মানুষকে আর ঢাকায় আসতে হবে না। জেলা হাসপাতালগুলোকে পর্যায়ক্রমে অত্যাধুনিক স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে উন্নীত করা হবে।

মোহাম্মদ নাসিম মাতৃদুগ্ধ পানে নতুন প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করতে জনসচেতনতা সৃষ্টির উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এক্ষেত্রে অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে যেন তারা সন্তানদেরকে নৈতিক ও ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি শিশুকে মায়ের দুধ খাওয়ানোর জন্য উৎসাহ যোগাতে পারেন। নতুন প্রজন্মের মধ্যে অতি আধুনিকতার নামে অনেকেই বিপথে চলে গিয়ে মাদকাসক্তি ও সন্ত্রাসে জড়িয়ে পড়ছে। ফলে তাদের মধ্যে সন্তানদেরকে দুধ খাওয়ানোর প্রবণতা অনেক কমে আসে। এজন্য প্রজন্মকে সচেতন করতে অভিভাবকদের সচেষ্ট হতে হবে।

কর্মজীবী নারীদের সন্তানদের মায়ের দুধ খাওয়ানোর সুবিধার্থে দেশের সকল সরকারি, বেসরকারি অফিস, শিল্প ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শপিংমলে ‘ব্রেস্টফীডিং কর্নার’ স্থাপনের আহ্বান জানিয়ে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, এ উদ্যোগ মানবিক দায়িত্ব। নারী ও শিশু উভয়ের কল্যানেই এ ধরনের কর্নার স্থাপন জরুরি। এর জন্য সরকারি আদেশ বা আইন প্রণয়নের অপেক্ষায় থাকা উচিত নয়।

মন্ত্রী বলেন, চটকদারি বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হয়ে টিনজাত দুধ খাওয়ানোকে নিরুৎসাহিত করতে সর্বস্তরের মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। এজন্য শুধু আগস্টের প্রথম সপ্তাহ নয়, বছরের প্রতিদিনই মানুষকে বোঝাতে হবে যে মায়ের দুধের কোনো বিকল্প নাই।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সচিব সৈয়দ মন্জুুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাধ্যে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মো. নূরুল হক, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ নূর হোসেন তালুকদার, বাংলাদেশ ব্রেস্ট ফিডিং ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন ডা. এস কে রায় বক্তৃতা করেন।