83262_s1দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটারদের জন্য স্পিন ফাঁদ পাতা হয়েছিল। কিন্তু টি-২০ সিরিজের দুই খেলায় সেই ফাঁদেই পড়েছে বাংলাদেশ। যে সুবিধা স্বাগতিক বোলার-ব্যাটসম্যানদের নেয়ার কথা সেটির পুরোটাই তুলে নিয়েছে সফরকারী ক্রিকেটাররা। ভারতের আইপিএল-এ খেলে খেলে প্রোটিয়ারা যেন উপমহাদেশের উইকেটটা এখন ভালই বোঝে। প্রথম দুই টি-টোয়েন্টিতে স্পিনের বিপক্ষে ফ্যাফ ডু প্লেসিদের ব্যাটিং আর স্পিনার ফাঙ্গিসো ও লিদের বোলিংয়ে তেমনটাই মনে হয়েছে। তাই সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচের আগে মাশরাফিকে উইকেটটাই বেশি ভাবিয়ে তুলছে। বৃষ্টিতে মাঠে অনুশীলন সম্ভব হয়নি। এমনকি উইকেটের কভার তুলে দেখাও যায়নি সেটি কেমন হতে যাচ্ছে। গতকাল সংবাবদ সম্মেলনে এসে মিরপুরের উইকেট ছাড়াও দলের দুর্বলতা ও এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে বিষয়গুলো তুলে ধরেন। তার সেই কথোপকথনের মূল অংশ তুলে ধরা হলো-
মিরপুরের উইকেট কেমন হবে?
উইকেট নিয়ে এখন বেশ বিভ্রান্ত। আমাদের শেষ কয়েকটি সিরিজ, বিশ্বকাপ ও ঘরের মাঠে ট্রু উইকেটে খেলেছি। এখন এখানে ট্রু উইকেট হলে ওদের (দক্ষিণ আফ্রিকা) পেস বোলিংয়ের একটা ব্যাপার থাকে। তবে হ্যাঁ উইকেট নিয়ে এখন বেশি না ভাবাই ভাল। আমাদের ধারাবাহিকতা ঠিক রাখতে হবে। ওদের স্পিনার যারা আছে তাদের থেকেও বড় স্পিনার আমরা হ্যান্ডেল করেছি। এ ধরনের কন্ডিশনে আমরা খেলেছি। কিছুদিনের অভ্যস্ততা নেই, তাই হয়তো কষ্ট হয়েছে। তবে আমাদেরকে পরিকল্পনায় আসতে হবে। বড় স্বার্থের জন্য কিছুকিছু জিনিসে আমাদেরকে ছাড় দিতে হবে। আমি জানি না উইকেট কেমন হবে। কারণ বৃষ্টির জন্য পুরোটাই ঢাকা ছিল। যে ধরনের উইকেট থাকুক আমাদেরকে মানিয়ে নিয়ে ভাল খেলতে হবে। আর জয় চাইলে দক্ষিণ আফ্রিকার সব বিভাগে একধাপ বেশি ভাল খেলতে হবে। এছাড়াও যখন প্রতিপক্ষ স্পিনে কিছুটা দুর্বল থাকে অবশ্যই চাইবো যে আমাদের সুবিধা করে উইকেট বানাবে। কিন্তু আমাদের তো বড় টার্নার নেই। দুই ম্যাচে আমরা দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করেছি, ওরা স্পিনে সুবিধা পেয়েছে। এটি আমাদের জন্যে নেতিবাচক ছিল। তবে ৫০ ওভারে উইকেট এত তাড়াতাড়ি ভাঙবে না।
অন্তত একটি জয়ের জন্য খেলবেন কিনা?
প্রথমত আমরা সব সময় জিততে চাই। আপনারা যারা আছেন, দর্শক যারা আছেন সবাই সব সময় জিততে চাই। আমরা যদি শেষ তিনটা ম্যাচের কথা বলি আমরা ধারার বাইরে গিয়ে বেশি জয়ের চিন্তা করেছি। আমার মনে হয় আমরা যদি ধারা ঠিক রেখে খেলতে পারি যেটা বিশ্বকাপ ও অন্যান্য সিরিজে করেছি, ভাল করতে পারবো। জয়ের জন্য বেশি পরিকল্পনা না করে খেলার ধরন নিয়ে বেশি চিন্তা করা উচিত। আমরা তিনটা ম্যাচ জয়ের জন্য নামবো। তবে কাজটা খুব কঠিন হবে। এই মুহূর্তে একটা বা দুইটা ম্যাচের জয়ের কথা বলা ঠিক হবে না।
দুই দলের স্পিনারদের পার্থক্য কতটা?
সাকিবের রেকর্ড বলে সাকিব বিশ্বের সেরা বোলারদের একজন। সাকিববে সবার উপরে রাখতেই হবে। তবে ফর্ম বলে একটি কথা থাকে। ওদের ইমরান তাহির যেমন বেশ কয়েক বছর থেকে ধারাবাহিকভাবে অনেক ভালো। ওদের অন্য বোলাররাও বেশ ভালো অবস্থায় আছে। কারণ টি-টোয়েন্টিতে ভাল করায় তারা কিছুটা আত্মবিশ্বাস পাবে। কিন্তু আমাদের স্পিনাররা যারা আছে এই কন্ডিশনে সব সময় খেলে, তারা এই কন্ডিশনে একধাপ উপরে থাকবে খুবই স্বাভাবিক।
ভিলিয়ার্সের দলে না থাকায় কোন সুবিধা?
এবি এমন এক ব্যাটসম্যান যাকে শুধু বোলার নয়, পুরো দল সমীহ করে। প্রতিপক্ষ দলের কোচের ওকে নিয়ে আলাদা পরিকল্পনা করতে হয়। এবি যে দলের বিপক্ষে না খেলে তাদের জন্যে সেটা স্বস্তিদায়ক। আবার দক্ষিণ আফ্রিকাও কিন্তু এবিকে অনেক মিস করবে। আলাদা করে পরিকল্পনা করবে ওকে ছাড়া। এবিকে বর্ণনা করলে আমি এভাবে বর্ণনা করতে পারি, ওর মত খেলোয়াড় যে দলে থেকেও খেলে না তাদের চিন্তা আরও বেশি। ওর না থাকা আমাদের জন্য দারুণ সুযোগ। তবে এবি ছাড়াও ওদের ডি. ককদের মতো বড় ক্রিকেটার আছে।
ভারত-পাকিস্তানের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার পার্থক্য?
আইসিসি’র ইভেন্ট ছাড়া কোন দ্বিপক্ষীয় সিরিজে যে কোন দলের জন্যই দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে জেতা কঠিন। ওদের বিশ্বের শীর্ষ দুই দলের মধ্যেই রাখা হয়। তাই শুধু আমাদের সঙ্গেই নয় বিশ্বের যে কোন দলের সঙ্গে ওদের পার্থক্য আছে। ওদের সঙ্গে খেলা এই মুহূর্তে যেমন চ্যালেঞ্জ তেমনি আনন্দেরও। আমরা যদি ওদের সঙ্গে ভাল করতে পারি অনেক বড় একটা স্টেপে পা দিতে পারবো কারণ এটা আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দেবে।
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে স্পিন কতটুকু কার্যকর?
ভারতের মাঠে এখন দক্ষিণ আফ্রিকার অনেক খেলোয়াড় কিন্তু খেলে। আমাদের একটা ধারণা আছে, দক্ষিণ আফ্রিকা স্পিন ভাল খেলে না। আমি এভাবে দেখি, ওরা হয়তো পেস বলের চেয়ে স্পিন বল একটু খারাপ খেলে। আমি যতটুকু দেখেছি ওরা স্পিন ভালই খেলে। তার প্রমাণ দিয়েছে ওরা টি-টোয়েন্টিতে।
বাংলাদেশের লক্ষ্য কি?
ক্রিকেট সব সময় সমানভাবে চলে না। আমিসহ পুরো দলই আশা করছে। আমাদের দুটি বাজে দিন গেছে। সেখান থেকে ফিরে আসা একটা ভাল দলের লক্ষণ। হার-জিৎ পরের কথা, অন্তত যে ইতিবাচক, আগ্রাসী ক্রিকেট খেলছিলাম সেটায় ফেরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
বৃষ্টির সম্ভাবনা কি দেখছেন?
বৃষ্টি নিয়ে বলতে পারছি না। কারণ আবহাওয়ার নিয়ন্ত্রণ আমাদের হাতে নেই।

ওয়াজ কুরুনীখেলাধুলা
দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটারদের জন্য স্পিন ফাঁদ পাতা হয়েছিল। কিন্তু টি-২০ সিরিজের দুই খেলায় সেই ফাঁদেই পড়েছে বাংলাদেশ। যে সুবিধা স্বাগতিক বোলার-ব্যাটসম্যানদের নেয়ার কথা সেটির পুরোটাই তুলে নিয়েছে সফরকারী ক্রিকেটাররা। ভারতের আইপিএল-এ খেলে খেলে প্রোটিয়ারা যেন উপমহাদেশের উইকেটটা এখন ভালই বোঝে। প্রথম দুই টি-টোয়েন্টিতে স্পিনের বিপক্ষে ফ্যাফ ডু প্লেসিদের...