image_242863.rowson-
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মানুষের দুরবস্থা নিজের চোখে দেখারজন্য বোরকা পড়ে ছদ্মবেশে রাতের অন্ধকারে বের হওয়ার অনুরোধ করছেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তিনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, রাস্তায় বের হয়ে দেখুন, মানুষ কিভাবে জীবনযাপন করে। তাহলে আপনার ধারণা হবে। আপনি সঠিকভাবে জনগণের চিত্র দেখতে পাবেন।

বুধবার দশম সংসদের দ্বিতীয় বাজেট অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্যে রওশন এরশাদ প্রধানমন্ত্রীর প্রতি এ আহ্বান জানান।

রওশন এরশাদ বলেন, ছদ্মবেশে বের হয়ে মানুষের দুরবস্থা দেখেন। কিভাবে তারা বাস করছেন। আপনি যদি এটা করেন, তাহলে সত্যিকারের বঙ্গবন্ধু কন্যা হিসেবে আরও সম্মানিত হবেন। আপনার চারপাশে যারা আছেন তারা সত্যিকার তথ্য আপনাকে জানাবেন না। অন্যের কাছ থেকে শোনা আর নিজের চোখে দেখার মধ্যে পার্থক্য আছে।

এ সময় রওশন এরশাদ উচ্চপর্যায়ের শক্তিশালী একটি কমিটি গঠন করে মাদক ব্যবসা বন্ধেরও উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, নিম্ন মধ্য আয়ের দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে নির্বাচিত হওয়ায় তিন কন্যাকে ধন্যবাদ। তারা বিদেশের মাটিতে আমাদের মুখ উজ্জ্বল করেছেন। এর আগে সংসদে ধন্যবাদ প্রস্তাব পাসে বিরোধী দল উপস্থিত ছিল না। এই প্রথম আমরা সংসদে থেকে এ ধরনের কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছি। বিরোধী দল হিসেবে সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা করতে চাই। বিরোধী দলের ভূমিকা কী রকম হতে পারে তার উদাহরণ তৈরি করে দেখাতে চাই।

যানজট প্রসঙ্গে রওশন এরশাদ বলেন, যানজট নিরসন করতে না পারায় জীবন শক্তি রাস্তাতেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এ যানজটের কারণে প্রধানমন্ত্রীর ইফতার মাহফিলে যোগ দিতে পারিনি।

বিরোধী দলের নেতা বলেন, প্রতিদিন রাস্তায় ১৫ লাখ গাড়ি ও ৫০ লাখ মানুষ এবং ৯ লাখ মোটরসাইকেল চলাচল করে। কিন্তু যানজটের কারণে অনেক কর্মক্ষমতা, কর্মঘণ্টা ও বাণিজ্যিক ঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সময় নষ্ট হচ্ছে। এসবের সুরাহা করা প্রয়োজন। এ ছাড়া সড়ক দুর্ঘটনাও রয়েছে। ভুয়া লাইসেন্স নিয়ে অনেক চালক রাস্তায় বের হচ্ছে। তারা জানেন না কোথায় কিভাবে চলতে হয়। এ থেকে আমাদের পরিত্রাণ পেতে হবে। যানজট ও কালোধোঁয়া থেকে নিষ্কৃতি পেতে পরিকল্পনা করতে হবে।

রওশন এরশাদ বলেন, বৃষ্টি হলেই জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এ কারণে ঢাকায় বিশেষ করে মৌচাক, মালিবাগ, এমনকি গুলশান, বনানী, বারিধারাতেও জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। রাজধানীর ৫০টি খালের মধ্যে এখন আছে মাত্র ২২টি। এর মধ্যে বেশিরভাগ আবার দখল হয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী ও যোগাযোগমন্ত্রীকে এ সমস্যা নিরসনে দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। তিনি বলেন, ভূমিকম্পের বিষয়ে আমাদের কোনো প্রস্তুতি নেই। ভূমিকম্প যেকোনো সময় হতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একটি রিপোর্ট দিয়েছে। সেখানে নেপালে যে ভূমিকম্প হয়েছে তার থেকে ৩২ গুণ বেশি মাত্রায় ভূমিকম্প হবে বলে বলে জানানো হয়েছে। তাহলে আমাদের তখন উপায় কী হবে?

রওশন এরশাদ বলেন, মানবপাচার যেভাবেই হোক বন্ধ করতে হবে। দেশে কর্মসংস্থান নেই বলেই তারা বিদেশে যাচ্ছেন। তা নাহলে যাবে কেন? পাচারকারীরা অতি সহজে মানুষকে বুঝিয়ে তাদের জীবন কেড়ে নিচ্ছেন। তিনি বলেন, আমরা সারাবছর ভেজাল খাচ্ছি। এখন রোজার মাসে ভেজালবিরোধী অভিযান চালানো হচ্ছে। দেশ নিয়ে অনেক চিন্তাভাবনা করতে হবে।

ওয়াজ কুরুনীজাতীয়
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মানুষের দুরবস্থা নিজের চোখে দেখারজন্য বোরকা পড়ে ছদ্মবেশে রাতের অন্ধকারে বের হওয়ার অনুরোধ করছেন জাতীয় পার্টির সিনিয়র প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তিনি প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, রাস্তায় বের হয়ে দেখুন, মানুষ কিভাবে জীবনযাপন করে। তাহলে আপনার ধারণা হবে। আপনি সঠিকভাবে জনগণের চিত্র দেখতে পাবেন। বুধবার...