bdp_92180
ব্রাজিল থেকে আমদানি করা ২৩৩ মেট্রিক টন নিম্ন মানের গম শিবগঞ্জে এলাকার কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচিতে (কাবিখা) বিতরণ করা হয়েছে। অভিযোগ পাওয়া গেছে, শিবগঞ্জ খাদ্য গুদামে এ গম আসার সঙ্গে সঙ্গে তা কাবিখায় দিয়ে দেওয়া হয়। তা এরই মধ্যে যথারীতি বিতরণও হয়ে গেছে।

এ ব্যাপারে গতকাল শিবগঞ্জ খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জান মোহাম্মদ ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, ব্রাজিলের ২৩৩ মেট্রিক টন গম শিবগঞ্জ খাদ্য গুদামে আসে এবং ওই সমস্ত গম কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচিতে সরবরাহ করা হয়েছে। তিনি আরও জানান, আমদানিকৃত গমগুলো পচা না হলেও অত্যন্ত নিম্নমানের। এসব গমের ব্যাপারে বিভিন্ন ইউনিয়নের শ্রমিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানিয়েছেন, ‘পচা নিম্ন মানের গম বড় কথা নয়। গরিবের পেটে সবই সয়।’

খাদ্যগুদামে জায়গা নেই : শিবগঞ্জ খাদ্য গুদামে জায়গা না থাকায় বরাদ্দকৃত চাল সরবরাহ দিতে পারছেন না মিলাররা। গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জান মোহাম্মদ জানিয়েছেন, গুদামের ধারণ ক্ষমতা ১ হাজার মেট্রিক টন। কিন্তু চলতি মৌসুমে দ্বিতীয় দফায় বরাদ্দকৃত ১৫শ’ মেট্রিক টনের মধ্যে ১২৬ মেট্রিকটন গম কেনা হয়। বর্তমানে খাদ্য গুদামে ১ হাজার ৫শ’ মেট্রিক টন গম ও প্রায় ৩৪ মেট্রিক টন চাল মজুদ থাকার কারণে বরাদ্দকৃত ১০৯ মেট্রিক টন চাল মিলাররা গুদামে দিতে পারছেন না। গুদামে রক্ষিত গম স্থানান্তরিত করার জন্য আঞ্চলিক খাদ্য দফতরে চিঠি দেয়া হলেও এখন পর্যন্ত গম সরানোর জন্য কোনো আদেশ আসেনি। যার কারণে মিলারদের কাছ থেকে চাল গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছে না।

ওয়াজ কুরুনীঅন্যান্য
ব্রাজিল থেকে আমদানি করা ২৩৩ মেট্রিক টন নিম্ন মানের গম শিবগঞ্জে এলাকার কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচিতে (কাবিখা) বিতরণ করা হয়েছে। অভিযোগ পাওয়া গেছে, শিবগঞ্জ খাদ্য গুদামে এ গম আসার সঙ্গে সঙ্গে তা কাবিখায় দিয়ে দেওয়া হয়। তা এরই মধ্যে যথারীতি বিতরণও হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে গতকাল শিবগঞ্জ খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত...