1435914572

বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে বাঁচাতে প্রহসনের বিচার করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম। শুক্রবার ফেলানী হত্যার আসামির নির্দোষ প্রমাণ হওয়ার খবর শুনে তিনি এই মন্তব্য করেন।

নুর ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে হত্যার ন্যায় বিচার তারা দিল না। এখন মনে হচ্ছে আত্মস্বীকৃত খুনি অমিয় ঘোষকে বাঁচাতে তারা এই প্রহসনের বিচার বসিয়েছে। এজন্যই তারা বার বার বিচার কার্যক্রম শুরু করে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে কয়েকদিন পরেই তা স্থগিত করেছে।

তিনি বলেন, এবারো তারা তাদের আদালতে অমিয় ঘোষকে বেকসুর খালাস দিলেও আল্লাহর দরবারে একদিন এর বিচার হবেই।

কান্না জড়িত কণ্ঠে মা জাহানারা বেগম বলেন, মানুষের আদালতে দেয়া আমার মেয়ের হত্যা মামলার এই রায় মানি না।

আবুল হোসেন, জাবেদ আলী, মালেক হোসেনসহ প্রতিবেশিরা বলেন, খুনি তার দোষ স্বীকার করার পরেও খুনিকে যদি খালাসই দেয়া হয় তাহলে এই বিচার কি তবে লোক দেখানো। ফেলানির বাবা মার সাথে আমরাও এই বিচার মেনে নিতে পারি নাই।

পর পর তিনবার স্থগিতের পর গত ৩০ জুন মঙ্গলবার চতুর্থবারের মতো ভারতের কুচবিহার জেলার বিএসএফ’র ১৮১ সদর দফতরে স্থাপিত জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্টে এই মামলার পুনর্বিচার কার্যক্রম শুরু হয়। আসাম ফ্রন্টিয়ারের ডিআইজি (কমিউনিকেশনস) সিপি ত্রিবেদীর নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বিচারক বেঞ্চ শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার রাতে অমিয় ঘোষকে নির্দোষ ঘোষণা করে বেকসুর খালাসের রায় দেয়। এর আগে ২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর এই আদালত একই রায় দেয়া হয়েছিল।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি ফুলবাড়ী উপজেলার উত্তর অনন্তপুর সীমান্তে মই বেয়ে কাঁটাতার ডিঙিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় টহলরত চৌধুরীহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষ কিশোরী ফেলানীকে গুলি করে হত্যা করে।

তুনতুন হাসানজাতীয়
বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে বাঁচাতে প্রহসনের বিচার করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ফেলানীর বাবা নুর ইসলাম। শুক্রবার ফেলানী হত্যার আসামির নির্দোষ প্রমাণ হওয়ার খবর শুনে তিনি এই মন্তব্য করেন। নুর ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে হত্যার ন্যায় বিচার তারা দিল না। এখন মনে হচ্ছে আত্মস্বীকৃত খুনি অমিয় ঘোষকে বাঁচাতে তারা এই...