81641_s1
‘দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে আমি খেলবোই, তবে মনে হয় না টি-টোয়েন্টিতে খেলতে পারবো, হুম… তবে আশা করি ওয়ানডে সিরিজে অবশ্যই খেলবো। আমাকে ফিরতেই হবে জাতীয় দলে।’- একদিকে আশা আর একদিকে শঙ্কা নিয়েই কথাগুলো বলছিলেন জাতীয় দলের উদীয়মান পেসার তাসকিন আহমেদ তাজিম। তাকে নিয়ে ক্রিকেট বোদ্ধাদের ধারণা- তিনি হবেন মাশরাফি বিন মুর্তজার ছাঁয়া। এমনকি মাশরাফিও মনে করেন তারপরই নির্ভর করার মত পেসার হচ্ছেন এই তরুণ। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি অভিষেক থেকে নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে এগিয়েও যাচ্ছেন তাসকিন। কিন্তু এখনও মাশরাফিকে ছুঁতে পাড়ি দিতে হবে অনেক কঠিন পথ। তবে একটি বিষয়ে মাশরাফিকে এখনই ছুঁয়ে ফেলতে যাচ্ছেন তিনি। তা হলো ইনজুরি। বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়কের ইনজুরির প্রভাবটা যেন তার উপরই পড়েছে। তবে এবার হাঁটুতে নয়, সাইড স্ট্রেইন ইনজুরি তাকে ছিটকে ফেলেছে ভারত সিরিজ থেকে। ভারতের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে সাইড স্ট্রেইনের কারণে তাকে থাকতে হয় সাইড লাইনে বসে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে ৭ই জুলাই থেকে। এরপর ১০ই জুলাই থেকে ওয়ানডে সিরিজ। নিজের ইনজুরি নিয়ে বলেন, ‘আমি খুবই দ্রুত রিকভার করছি। এ সপ্তাহেই বোলিং শুরু করবো। তবে এখনই অনেক বেশি বল করতে পারবো না, ধীরে ধীরে বোলিং শুরু করবো।’
গতকাল মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের একাডেমির গেটে দাঁড়িয়েছিলেন তাসকিনের পিতা আবদুর রশীদ মুনু। অনেকটাই চিন্তিত দেখাচ্ছিল তাকে। তাসকিন তখন ফিজিওথেরাপি নিতে ব্যস্ত। ছেলের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ভারতের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ যে ও খেলতেই পারবে না সেটি জানতাম না। ও আমাদের জানায়নি আমরা দুশ্চিন্তা করবো বলে। রাতে অ্যাপোলোতে দেখিয়ে এরপর আমাদের জানিয়েছে। এখন দোয়া করি আর সবার কাছে দোয়া চাই যেন তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে মাঠে ফিরে।’ তার বাবার কথা শেষ হতেই বের একামেডির গেট থেকে বের হয়ে আসেন তাসকিন। কেমন আছেন, শুনে একটু চুপ থেকে বলেন, ‘কি বলবো মনটা খরাপ। যখন এমন হয় আসলে কোন কিছুই ভাল লাগে না। বাসাতেই মন খরাপ করে বসে থাকি। আর জিম করি।’
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তাসকিনের সম্ভাবনা যতটাই থাকুক না কেন, তার প্রস্তুতি কিন্তু কোন ভাবেই কম হচ্ছে না। আপাতত জিম, ট্রেনিং ও রিহ্যাব করেই সময় কাটছে তার। ভারতের সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের শক্তির পার্থক্যটাও তিনি খুব ভালভাবে চিন্তা করেছেন। তাসকিন বলেন, ‘আসলে ভারতের বিপক্ষে আমার বোলিং করতে খুব ভয় হচ্ছিল। কারণ ওরা ব্যাটিং শক্তির দিক থেকে এগিয়ে। পরে অবশ্য মাঠে নামার পর তেমন কিছুই মনে হয়নি। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিং-বোলিং দুটিই শক্তিশালী। তাই আমাদের ওদের ব্যাটসম্যানদের বিপক্ষে লাইন লেন্থ ঠিক রেখেই বোলিং করতে হবে। নিজেদের সেরা বোলিংটাই করতে হবে। আর ব্যাটসম্যানদেরও সেরা ব্যাটিংটাই করতে হবে।’
ভারতের বিপক্ষে পেসার দিয়েই রণ কৌশল আঁকা হয়েছিল। সফলও হয়েছে দল। এবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে স্পিন নির্ভর রণ কৌশলের পরিকল্পনার কথা শোনা যাচ্ছে। তাসকিনের কথায় সে ইঙ্গিতও পাওয়া গেল। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে পেস আক্রমণ কতটা কার্যকর হবে? তাসকিন বলেন, ‘আমাদের পেসারদের যেমন ভাল করতে হবে এবার মনে হয় স্পিনারদেরও আরও কিছুটা বেশি ভূমিকা রাখতে হবে। আমাদের স্পিন আক্রমণটাই সেরা তাদেরতো এগিয়ে আসতেই হবে।’

তাহসিনা সুলতানাখেলাধুলা
‘দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে আমি খেলবোই, তবে মনে হয় না টি-টোয়েন্টিতে খেলতে পারবো, হুম... তবে আশা করি ওয়ানডে সিরিজে অবশ্যই খেলবো। আমাকে ফিরতেই হবে জাতীয় দলে।’- একদিকে আশা আর একদিকে শঙ্কা নিয়েই কথাগুলো বলছিলেন জাতীয় দলের উদীয়মান পেসার তাসকিন আহমেদ তাজিম। তাকে নিয়ে ক্রিকেট বোদ্ধাদের ধারণা- তিনি হবেন মাশরাফি বিন...