3_282019
চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে রেলের ব্রিজ ভেঙে তেলবাহী একটি ট্রেনের ২টি ওয়াগন খালে পড়ে যাওয়ার ঘটনায় এরই মধ্যে প্রায় ৮০ হাজার লিটার তেল খালের পানিতে ছড়িয়ে পড়েছে। ওয়াগন খালি করার জন্য তেল অপসারণের কারণে দুর্ঘটনাস্থলের প্রায় ১৮ কিলোমিটার এলাকায় তেল ছড়িয়ে পড়েছে। এতে করে পুরো এলাকার পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। তেলের ওয়াগনগুলো থেকে ফার্নেস অয়েল বের হয়ে শেরপুর খালের পানিতে মিশে যাওয়ায় মাছ ও জীববৈচিত্র্য চরম হুমকির মুখে পড়েছে। পাশাপাশি এই ফার্নেস অয়েলের কারণে ফসলেরও ব্যাপক ক্ষতির আশংকা করছেন এলাকাবাসী। এছাড়া দুর্ঘটনাস্থল শেরপুর খাল হয়ে ফার্নেস অয়েল কর্ণফুলী নদীতেও ছড়িয়ে পড়ছে।
এদিকে একদিন পর গতকাল শনিবার ট্রেনটি উদ্ধারে কাজ শুরু করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। খাল থেকে তেল অপসারণ করে ২টি খালি ওয়াগনে তোলা শুরু হয়েছে। ভেঙে যাওয়া সেতুটি সচলেও কাজ শুরু করতে পারেনি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ফলে চট্টগ্রাম-দোহাজারী লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। অন্যদিকে পরিবেশ অধিদফতরের দুটি টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।
রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজার (ডিআরএম) মফিজুর রহমান শনিবার বিকালে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, ওই রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হতে আরও তিন থেকে চারদিন লাগবে। তবে ডুবে যাওয়া ওয়াগন উদ্ধারে কাজ চলছে। তিনি বলেন, ‘শুক্রবার ওয়াগন থেকে তেল অপসারণ শুরু হয় আর শনিবার থেকে ডুবে যাওয়া ওয়াগন উদ্ধারে কাজ শুরু করেছে রেলওয়ে। তবে ভেঙে যাওয়া ব্রিজটি সচলে এখনও কাজ শুরু হয়নি। তাই চট্টগ্রাম- দোহাজারী রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।’
ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী ধলঘাট স্টেশন মাস্টার অনুপম সেন জানান, ডুবে যাওয়া ওয়াগন থেকে জ্বালানি তেল বের করতে না পারায় উদ্ধার কাজ বিলম্ব হয়। পরে ওয়াগন থেকে তেল অপসারণের পরপরই উদ্ধার কাজ শুরু হয়।
এদিকে ফার্নেস অয়েল ওয়াগন থেকে অপসারণ করে উদ্ধার কাজ শুরু করায় আশপাশের পুরো এলাকায় পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকা করছে এলাকাবাসী। আর এ আশংকা থেকে পরিবেশ বিপর্যয় রোধে কাজ শুরু করেছে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ অধিদফতর। তাদের দুটি টিম শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। শনিবার সকালে পরিবেশ অধিদফতরের বিভাগীয় পরিচালক মকবুল হোসেন ৫ জনের একটি টিম নিয়ে আশপাশের প্রায় ১০-১২টি গ্রাম ঘুরে দেখেন। তেল ছড়িয়ে পড়ার প্রমাণও দেখেন সরজমিনে। এ টিম শেরপুর খালটি কর্ণফুলীর নদীর মুখ পর্যন্ত তেল ছড়িয়ে পড়া দেখেন। কোথাও কোথাও খালে-বিলে বিভিন্ন ধরনের মাছ মরে ভেসে ওঠার দৃশ্য দেখা গেছে। এরপর পানি থেকে তেল অপসারণে কয়েকটি পরামর্শ দেন গ্রামবাসীসহ সংশ্লিষ্টদের।
তেল ছড়িয়ে পড়ার কথা স্বীকার করে পরিবেশ অধিদফতরের বিভাগীয় পরিচালক মকবুল হোসেন শনিবার বিকালে ঘটনাস্থল থেকে মোবাইল ফোনে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, পুরো এলাকায় তেল ছড়িয়ে পড়েছে। খালের তেলগুলো জোয়ারের পানিতে চলে যাওয়ার জন্য কয়েকটি পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে আরও তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।
শুক্রবার দুপুর দেড়টার দিকে বোয়ালখালীর বেঙ্গুরা ও পটিয়ার ধলঘাট এলাকার মাঝামাঝি রেলওয়ের ২৪নং সেতু ভেঙে ইঞ্জিনসহ তিনটি তেলবাহী ওয়াগন খালে পড়ে যায়। এর মধ্যে দুইটি ওয়াগন বোয়ালখালী খালে ডুবে যায়। দোহাজারী ১০০ মেগাওয়াট পিকিং পাওয়ার প্ল্যান্টের জন্য জ্বালানি তেলগুলো নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল।
ওই ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের দুই প্রকৌশলীকে বরখাস্ত করা হয়। গঠন করা হয়েছে পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি। তিন কার্য দিবসের মধ্যে কমিটিকে রিপোর্ট দিতে বলা হয়।

তুনতুন হাসানপ্রথম পাতা
চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে রেলের ব্রিজ ভেঙে তেলবাহী একটি ট্রেনের ২টি ওয়াগন খালে পড়ে যাওয়ার ঘটনায় এরই মধ্যে প্রায় ৮০ হাজার লিটার তেল খালের পানিতে ছড়িয়ে পড়েছে। ওয়াগন খালি করার জন্য তেল অপসারণের কারণে দুর্ঘটনাস্থলের প্রায় ১৮ কিলোমিটার এলাকায় তেল ছড়িয়ে পড়েছে। এতে করে পুরো এলাকার পরিবেশ বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে। তেলের...