আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।
বাবা দিনমজুর। সাত বছরের ছোট্ট ছেলেটি বিকেলে বাড়ির কাছেই দোকানে গিয়েছিল জিনিস কিনতে। এরপর সেখান থেকে ফিরছিল। শীতের বিকেল তাই রাস্তাঘাটেও তেমন লোকজন ছিল না। তারপরে আবার হিমাচল প্রদেশে সিরমৌর জেলা।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

প্রচণ্ড ঠান্ডা। ফাঁকা রাস্তায় হাঁটছিল ছেলেটি। হঠাৎ কোথা থেকে প্রায় ১০ থেকে ১৫টি কুকুর তাকে ঘিরে ফেলে। ভয়ে কুঁকরে যায় ছেলেটি। একের পর এক কুকুরের কামড়ে নাজেহাল হয়ে ভয়ে চিৎকার শুরু করে সে। তার চিৎকারে গ্রামবাসীরা ছুটে আসেন।

ছেলেটিকে উদ্ধার করতে গিয়ে কুকুরের হামলায় আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন গ্রামবাসী।
আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় ছেলেটির। তার গলায়, পেটে, মুখে কামড়ে মাংস তুলে নিয়েছে হিংস্র কুকুরগুলো।

গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, এটা কোনও নতুন ঘটনা নয়, এক আগেও বেশ কয়েকবার এলাকায় রাস্তার কুকুরের হামলার শিকার হয়েছেন তারা। পুলিশকে সেকথা জানানোর পরেও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। যদিও জেলা প্রশাসক গরিব পরিবারটিকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য করেছেন।-
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। সূত্র : আজকাল

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/01/449.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/01/449-300x300.jpgতালুকদার বাবুলআন্তর্জাতিক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক । বাবা দিনমজুর। সাত বছরের ছোট্ট ছেলেটি বিকেলে বাড়ির কাছেই দোকানে গিয়েছিল জিনিস কিনতে। এরপর সেখান থেকে ফিরছিল। শীতের বিকেল তাই রাস্তাঘাটেও তেমন লোকজন ছিল না। তারপরে আবার হিমাচল প্রদেশে সিরমৌর জেলা।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। প্রচণ্ড ঠান্ডা। ফাঁকা রাস্তায় হাঁটছিল ছেলেটি। হঠাৎ কোথা থেকে প্রায় ১০...