HARIKEN
বরগুনায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে নাগরিক কমিটি। এসময় এসময় বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মঞ্জুরুল ইসলামের কুশপুত্তোলিকা দাহ করে ক্ষুব্দ জনতা।
শনিবার সন্ধ্যা সাতটায় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিন করে। পরে বরগুনা প্রেসক্লাব চত্বরে নাগরিক কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন কামালের সভাপতিত্বে সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন বরগুনার সাবেক পৌর মেয়র এ্যাড. মো. শাহজাহান, মুক্তিযোদ্ধা ও শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি সুখরঞ্জন শীল, মুক্তিযোদ্ধা কমরেড আবদুল হালিম, প্রেসক্লাব সভাপতি মো. হাসানুর রহমান ঝন্টু, খেলাঘর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য চিত্ত রঞ্জন শীল, খেলাঘরের সাধারণ সম্পাদক মুশফিক আরিফ, উন্নয়ন কর্মী ডেবিট শিকদার ও ইসমাইল হোসেন প্রমুখ।
শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ টা থেকে শনিবার (১৯সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত একটানা ৩৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন রয়েছে বরগুনা। এতে করে ঈদুল আযাহা উপলক্ষ্যে বেচাকেনায় ক্রেতা ও বিক্রেতাসহ সাধারণ মানুষও পড়ছে চরম ভোগান্তিতে।

ভয়াবহ বিদ্যুৎ বিপর্যয়ে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে বরগুনার মানুষ। অধিকাংশ সময়ই বিদ্যুৎবিহীন থাকছে এ জেলার মানুষ। লাগাতার বিদ্যুৎ না থাকায় বিদ্যুৎনির্ভর সকল কাজকর্মে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ টার দিকে বিদ্যুৎ চলে গেলে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিদ্যুৎ এর দেখা পাওয়া যায়নি। কখন আসবে তাও নিশ্চিত করে বলতে পারছে না বিদ্যুৎ বিভাগ।

বরগুনা বাজারের লোহার ব্যবসায়ী পলাশ কর্মকার ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, সারা বছর বসে থাকি কুরবানির ঈদ উপলক্ষ্যে এখন একটু বেচাকেনা ভালো কিন্তু সকাল থেকে এই পর্যন্ত কারেন্ট না থাকায় ব্যবসায় স্থবিরতা দেখা দিয়েছে। ক্রেতারাও কম আসছে। সেই সাথে আইপিএস এর চার্জ শেষ হয়ে গেছে তাই বাধ্য হয়ে দোকান বন্ধ করে ফেলতে হয়েছে।

একই অবস্থা বরগুনার বস্ত্র, জুতা ও কসমেটিকস পট্টিতে। বরগুনা কসমেটিকস পট্টির ব্যবসায় সুমন হাওলাদার ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, রাত হলে ক্রেতার সংখ্যা বাড়ে কিন্তু কারেন্ট না থাকায় ক্রেতা তো দূরের কথা দোকান খোলা রাখাই সম্ভব হচ্ছে না।

বিদ্যুৎ বিভাগ সুত্রে জানাগেছে, পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া সাবস্টেশন থেকে ৩৮ কিলোমিটার দীর্ঘ দূরত্বে ঝালকাঠি জেলার কাঁঠালিয়া সাবস্টেশন হয়ে সেখান থেকে ৩০ কিলোমিটার দূরত্বের মাধ্যমে বরগুনায় বিদ্যুৎ এসেছে। দুর্বল লাইন ও প্রায় সময়ই গাছের ডালপালা পড়ে বিকল হয়ে যায়। আর একবার বিকল হলে কোথা থেকে বিকল হয়েছে তা বোঝা অনেক কঠিন।

এবিষয়ে বরগুনার বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মঞ্জুরুল ইসলাম ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, বজ্রপাতে পিন ইনসুলেটর ফেটে গিয়ে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে বরগুনা। লাইন দীর্ঘ হওয়ায় খুঁজে বের করতে সময় লাগছে। এখন পর্যন্ত কোন খুটির পিন ইনসুলেটর ফেটে গেছে তা পাওয়া যায়নি তাই কখন বিদ্যুৎ দেওয়া যাবে সে বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না।

সুরুজ বাঙালীশেষের পাতা
বরগুনায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে নাগরিক কমিটি। এসময় এসময় বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মঞ্জুরুল ইসলামের কুশপুত্তোলিকা দাহ করে ক্ষুব্দ জনতা। শনিবার সন্ধ্যা সাতটায় নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবিতে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিন করে। পরে বরগুনা প্রেসক্লাব চত্বরে নাগরিক কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন কামালের...