1438173608নূন্যতম ২ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট না হলে তাকে ব্রডব্যান্ড বলা যাবে না। এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে চতুর্থবারের মতো দেশের ব্রডব্যান্ড নীতিমালায় পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে সরকার। এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিটিআরসি’কে সরকারের দিক থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে।

মঙ্গলবার দেশের সরকারি পাঁচটি টেলিযোগাযোগ কোম্পানির সঙ্গে বৈঠকে ব্রডব্যান্ডের গতি বাড়ানোর কথা বলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

বৈঠকে অংশ নেয়া বেশ কয়েকটি কোম্পানির শীর্ষ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ব্যান্ডউইথের মূল্য আরও কমানো এবং বিশেষ করে ঢাকার বাইরে তা সহজলভ্য করার নির্দেশনাও দিয়েছেন এ তথ্যপ্রযুক্তিবিদ।

বর্তমানে ব্রডব্যান্ডের সর্বনিম্ন গতি ১ এমবিপিএস রয়েছে। যতো দ্রুত সম্ভব এটি কার্যকর করার পাশাপাশি টেলিযোগাযোগ নীতিমালায়ও তা যুক্ত করার কথা বলেছেন জয়। বৈঠকে অংশ নেয়া কর্মকর্তারা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ২০০৮ সালে প্রথমবারের মতো ব্রডব্যান্ডের সংজ্ঞায় ১২৮ কেবিপিএস গতি ঠিক করে দেয়া হয। পরে তা বাড়িয়ে ৫১২ কেবিপিএস করা হয়। ২০১৩ সালে তা ১ এমবিপিএস করা হয়।

শুভ সমরাটপ্রথম পাতা
নূন্যতম ২ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট না হলে তাকে ব্রডব্যান্ড বলা যাবে না। এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে চতুর্থবারের মতো দেশের ব্রডব্যান্ড নীতিমালায় পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে সরকার। এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিটিআরসি'কে সরকারের দিক থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে। মঙ্গলবার দেশের সরকারি পাঁচটি টেলিযোগাযোগ কোম্পানির সঙ্গে বৈঠকে ব্রডব্যান্ডের গতি বাড়ানোর কথা...