83921_s1
হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখার অপেক্ষায় দর্শকরা। অপেক্ষায় টাইগাররাও। লাকি গ্রাউন্ড চট্টগ্রামে ক্রিকেট বোদ্ধাদের প্রচলিত অনেকগুলো বিশ্বাস মিলিয়ে দেখার সুযোগ এসেছে। অনেকেই বলবেন কুসংস্কার! কিন্তু বিশ্বাস করুণ হারতে হারতেও চট্টগ্রামের মাটিতে এসে সিরিজ জিতে নিয়েছিলো মাশরাফি বাহিনী। অন্তত অতীত ইতিহাস তাই বলে। তবে বাংলাদেশের লাকি গ্রাউন্ডে আগে ব্যাট করতে স্বাগতিকদের ২৫০ রানের টার্গেট দিতে চায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের একেবারে কোলঘেঁষে বঙ্গোপসাগর। এখানকার আকাশে এখন অদ্ভুত আচরণ। দিনে বৃষ্টি হলে রাতে প্রচণ্ড গরম। তবে খেলার দিন এই নিয়ে অবশ্য কোন শংকা নেই কারো। ঝলমলে রোদ না থাকলে আবহাওয়াটা থাকতে পারে ফুরফুরে মেজাজে। এই শহরের ক্রিকেটপ্রেমীদের ধারণা, অল্প বৃষ্টি হলে নাকি টাইগার বাহিনীর জয় সুনিশ্চিত হয়ে যায়। আবার অনেকের মতে, ঝলমলে রোদে ফিল্ডিংটা আগে হলে পরে ব্যাট হাতে জয় এসে ধরা দেয় সহসা। উইকেট থাকে মসৃণ। হেসে খেলে জিতে যাওয়া যায়। এসব পরিসংখ্যান অবশ্য জিম্বাবুয়ে, পাকিস্তান আর শ্রীলঙ্কা সফরের ম্যাচ থেকে। তবে গতকাল অনুশীলন শেষে দুই দলই ভীষণ আত্মবিশ্বাসী বলে জানালেন। সাকিব চাইলেন স্মরণীয় করে রাখতে চট্টগ্রামকে। আর হাশিম আমলার দক্ষিণ আফ্রিকাতো সহজেই নিচ্ছেন না শেষ ম্যাচকে। তিন ম্যাচের শেষ ওয়ানডে নিয়ে সাকিব আল হাসান বলেন, আমরা আত্মবিশ্বাসী। বলতে পারেন জয়ের কাছাকাছি। স্বাভাবিক খেলাটাই খেলবো। বিশেষ করে ব্যাটসম্যানরা যদি একটু ধরে খেলতে পারে তাহলে প্রোটিয়াদের কাবু করা কঠিন হবে না।
তিনি আরও বলেন, বিশ্বকাপ ক্রিকেটে আমরা ভাল ফারফর্ম করেছি। এরপর পাকিস্তানের সঙ্গে দারুণ ম্যাচ জেতার পর ভারতকে হারিয়েছি নিজেদের মাঠে। তাই সেই সুযোগটা কাজে লাগাতে মরিয়া সবাই। দক্ষিণ আফ্রিকাকে সহজভাবে নিচ্ছেন না বলে জানিয়ে তিনি বলেন, ওরা আমরা এক-এক ম্যাচ জিতেছি। এখনও মনোবলটা চাঙ্গা। ওরা সবসময় আমাদের হারিয়ে এসেছে। এবার ঘরের মাঠে তাদের হারাতে চাই। চট্টগ্রামের স্টেডিয়ামকে লাকি গ্রাউন্ড উল্লেখ করে সাকিব বলেন, সাউথ আফ্রিকা অনেক ভাল টিম। তারা সব ধরনের পরিবেশে খেলতে পারে। আমরা জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এর আগেও ম্যাচ জিতেছি। তবে বৃষ্টি না হলেই ভাল। অন্তত খেলাটা খেলতে চাই। অন্যদিকে টাইগার বাহিনীর এমন জবাবে দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটার ইমরান তাহির বলেন, বাংলাদেশ এখন পেশাদার ক্রিকেট খেলছে। তাদের সঙ্গে চ্যালেঞ্জটা নিতে চাই। তবে শেষ ম্যাচে জয়টা হলে অবশ্যই সফরটা আনন্দের হবে। পরবর্তী ম্যাগুলোতে বাড়তি উৎসাহ পাবো। তিনি আরও বলেন, ক্রিকেটে অতীত নিয়ে ভাবাটা ভুল। ভাবলে মনোযোগ চলে যায়। ঢাকায় বেশ ভাল খেলেছে ওরা। চট্টগ্রামেও নাকি ভাল খেলে বলে একজন আমাকে বলেছে। তবে সবকিছুর শেষে বলতে চাই জয়ের জন্যই আমরা মাঠে নামবো। হয়তো কিছু পরিবর্তন আসতে পারে দলে। মোকাবিলার কথা তুলে ধরে ইমরান তাহির বলেন, আমাদের দলের প্রতিটি খেলোয়াড় শেষ পর্যন্ত জেতার জন্য লড়বে। কেউ হারবে না। বাংলাদেশের মিডেল অর্ডারটা ভালো করছে। বোলিংটাও চমৎকার। তবে এই মুহূর্তে আমাদের দলও বেশ গোছানো। এই বিষয়ে তিনি আরো বলেন, উইকেটটা একটু স্লো হলে খেলতে অনেক সময় সমস্যা হয়। এক্ষেত্রে স্পিন অনেক সময় ভয়ঙ্কর হয়ে উঠে। তবে কিছুদিন আগেও আমরা অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড খেলে এসেছি। সেখানে স্পিনকে মোকাবিলা করা কঠিন ছিল না। ২৫০ রান হলে স্কোরটা মন্দ হয় না!
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

শুভ সমরাটখেলাধুলা
হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখার অপেক্ষায় দর্শকরা। অপেক্ষায় টাইগাররাও। লাকি গ্রাউন্ড চট্টগ্রামে ক্রিকেট বোদ্ধাদের প্রচলিত অনেকগুলো বিশ্বাস মিলিয়ে দেখার সুযোগ এসেছে। অনেকেই বলবেন কুসংস্কার! কিন্তু বিশ্বাস করুণ হারতে হারতেও চট্টগ্রামের মাটিতে এসে সিরিজ জিতে নিয়েছিলো মাশরাফি বাহিনী। অন্তত অতীত ইতিহাস তাই বলে। তবে বাংলাদেশের লাকি গ্রাউন্ডে আগে ব্যাট করতে স্বাগতিকদের ২৫০...