1tk-290x112
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় মোবাইল ফোনে টাকা রিচার্জে এক টাকা কম দেওয়া নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে ৩ ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশসহ উভয়পক্ষের ২০ জন আহত হন।

মঙ্গলবার সরাইল উপজেলার সৈয়দটুলা গ্রামে সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুরু হয়ে রাত ৯টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষ চলে।

পুলিশ এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানায়, সোমবার রাতে সৈয়দটুলা গ্রামের ফকিরপাড়ার মনিরের মোবাইল ফোনের দোকানে ফ্লেক্সিলোড করতে যায় একই গ্রামের উত্তরপাড়ার সাত্তার।

সাত্তার ২০ টাকা রিচার্জ করলে তার মোবাইল ফোনে ১৯ টাকা দেওয়া হয়। এ নিয়ে দুইজনের তর্ক হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে
এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা বিষয়টি মীমাংসার আশ্বাস দিয়ে উভয়কে শান্ত করেন।

ওই ঘটনা নিয়ে মঙ্গলবার বিকেলে সৈয়দটুলা গ্রামের একটি মাঠে উভয়পক্ষের লোকজন সালিশে বসেন। সালিশের শেষপর্যায়ে সন্ধ্যার দিকে সভা থেকে দুই পক্ষের লোকজনই দুই দলে বিভক্ত হয়ে দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে সরাইল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ২০ রাউন্ড শটগান ও ৯ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংঘর্ষে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আরশাদ, উপপরিদর্শক (এসআই) শাহজালাল, এসআই শফিকুল ইসলামসহ উভয়পক্ষের অন্তত ২০জন আহত হয়। এ সময় বেশ কয়েকটি বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আরশাদ বিষয়টি নিশ্চিত করে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

হাসন রাজাঅন্যান্য
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলায় মোবাইল ফোনে টাকা রিচার্জে এক টাকা কম দেওয়া নিয়ে দুইপক্ষের মধ্যে ৩ ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশসহ উভয়পক্ষের ২০ জন আহত হন। মঙ্গলবার সরাইল উপজেলার সৈয়দটুলা গ্রামে সন্ধ্যা ৬টা থেকে শুরু হয়ে রাত ৯টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষ চলে। পুলিশ এবং প্রত্যক্ষদর্শীরা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানায়,...