92082_thumb_r-15
সিলেটে সেলফি তুলে ইন্টারনেট উইকের উদ্বোধন করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে নগরের রিকাবীবাজারস্থ সিলেট জেলা স্টেডিয়ামের মোহাম্মদ আলী জিমনেসিয়ামে দিনব্যাপী এ মেলার উদ্বোধন করা হয়।
সারাদেশের ন্যায় সিলেট বিভাগে এই উৎসব আয়োজন করছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস), সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগ এবং মুঠোফোন কোম্পানি গ্রামীণফোন।
বাংলাদেশ ইন্টারনেট উইকের সমাপনী অনুষ্ঠানের প্রতিমন্ত্রী পলক ছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ, তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বদরউদ্দীন কামরান, বেসিসের সভাপতি শামীম আহসান, গ্রামীণফোনের পরিচালক (বিপণন) নেহাল আহমেদ। এছাড়া বক্তব্য রাখেন সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট জেলা প্রশাসক জয়নাল আবেদিন, বেসিসের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বাংলাদেশ ইন্টারনেট উইক ২০১৫ এর আহ্বায়ক রাসেল টি. আহমেদ, বেসিসের সহ-সভাপতি এম রাশিদুল হাসান, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব পার্থ প্রতীম দেব। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বেসিসের মহাসচিব উত্তম কুমার পাল, যুগ্ম মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, কোষাধ্যক্ষ শাহ ইমরাউল কায়ীশ, পরিচালক ও বাংলাদেশ ইন্টারনেট উইকের সহ-আহ্বায়ক আশ্রাফ আবির, পরিচালক সামিরা জুবেরী হিমিকা, পরিচালক আরিফুল হাসান অপু, গ্রামীণফোনের ডিরেক্টর (স্টেকহোল্ডার রিলেশনস) ইশতিয়াক হুসেন চৌধুরী প্রমুখ।
প্রধান অতিথি জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, পৃথিবীর ইতিহাসে একসঙ্গে এত জায়গায় এ ধরণের আয়োজন এবারই প্রথম। তিনটি বিভাগীয় শহরে বড় উৎসব, ৪৮৭টি উপজেলা, দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্তত ৫০টি সেমিনার, সোশ্যাল মিডিয়া ও টেলিভিশন টক-শোর মাধ্যমে এই আয়োজনে সরাসরি সম্পৃক্ত হয়েছে ১ কোটি ২২ লাখেরও অধিক মানুষ। তারা ইন্টারনেট ও এর সঙ্গে জড়িত সেবা সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে, দেখতে ও ব্যবহার করতে পেরেছে। এই আয়োজনের সুফল আগামীতেও পাওয়া যাবে।
বাংলাদেশ ইন্টারনেট উইকের আনুষ্ঠানিক সমাপনী অনুষ্ঠান শেষে স্থানীয় শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘মিট দ্য ইয়ুথ’ প্রোগ্রাম আয়োজিত হয়। বেসিসের সভাপতি শামীম আহসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বেসিসের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে গত ৫ থেকে ৭ সেপ্টেম্বর রাজধানীর বনানী মাঠে বাংলাদেশ ইন্টারনেট উইক আয়োজন করা হয়। এরপর ৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে এই উৎসব পালন করা হয়। তারই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার সিলেটে এই ইন্টারনেট উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, ঢাকা, রাজশাহী ও সিলেটে বড় উৎসবের পাশাপাশি ৫ থেকে ১১ই সেপ্টেম্বর দেশের সবকটি উপজেলায় এই উৎসব পালন করা হয়। উৎসবের অংশ হিসেবে প্রায় অর্ধশত বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন কর্মশালা, সেমিনার এবং দেশের গনমাধ্যমগুলোতে অন্তত ৭টি পলিসি বৈঠকের আয়োজন করা হয়। আর এর মাধ্যমে ইন্টারনেট প্রবৃদ্ধির হার বাড়িয়ে প্রতিবছর নূণ্যতম ১ কোটি ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়ানো, সাধারণ জনগনকে আরও বেশি অনলাইন সেবার আওতায় আনাসহ তথ্যপ্রযুক্তি ও ইন্টারনেটভিত্তিক উদ্যোক্তাদের প্রয়োজনীয় সুবিধা নিশ্চিতকল্পে এগিয়ে যাওয়াও এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য।

মিস্টি রহমানবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
সিলেটে সেলফি তুলে ইন্টারনেট উইকের উদ্বোধন করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে নগরের রিকাবীবাজারস্থ সিলেট জেলা স্টেডিয়ামের মোহাম্মদ আলী জিমনেসিয়ামে দিনব্যাপী এ মেলার উদ্বোধন করা হয়। সারাদেশের ন্যায় সিলেট বিভাগে এই উৎসব আয়োজন করছে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস), সরকারের...