image_234969.khaleda zia
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, আমরা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মানুষের সমঅধিকারে বিশ্বাসী। হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানি, বৈষম্য, অন্যায়-অবিচার দূর করে সমাজকে শান্তিময় করে তুলতে যার যার অবস্থানে থেকে সবাইকে অবদান রাখতে হবে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শুক্রবার দেয়া এক বাণীতে তিনি এ আহ্বান জানান।

খালেদা জিয়া বলেন, আমি হিন্দু ধর্মাবলম্বী সবাইকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস অনুযায়ী তাদের আরাধ্য ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মদিন হওয়ায় জন্মাষ্টমী অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব হিসেবে তারা পালন করে থাকেন। সব ধর্মের মর্মবাণী শান্তি ও মানব কল্যাণ।

তিনি বলেন, যুগে যুগে সকল ধর্মের প্রচারকগণ সত্য ও ন্যায়ের পথ দেখিয়ে গিয়েছেন। শ্রীকৃষ্ণ পৃথিবীতে আবির্ভূত হয়েছিলেন এমনি এক সময়ে যখন সমাজে অত্যাচারী রাজার নিষ্ঠুর অত্যাচার ও দুঃশাসন বিরাজ করছিল। তিনি সেই অন্যায়কে দমন করে পৃথিবীতে ন্যায়, সত্য ও কল্যাণ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। যেকোন ধর্মীয় উৎসব সম্প্রদায়ের ভেদরেখা অতিক্রম করে মানুষে মানুষে মিলনের বাণী শোনায়, মানব সমাজের মধ্যে এক অনন্য ভ্রাতৃত্ববোধের জন্ম দেয়। আনন্দরুপ বিনম্রতায় সমাজে সকলকে এক গভীর শুভেচ্ছাবোধে অনুপ্রাণিত করে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ। এখানে সব ধর্মের মানুষেরা যুগ যুগ ধরে পারস্পারিক সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বের বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে বসবাস করে আসছে। জন্মাষ্টমীতে সবার সুখ, শান্তি, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ কামনা করেন তিনি।

শুভ সমরাটজাতীয়
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, আমরা ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মানুষের সমঅধিকারে বিশ্বাসী। হিংসা, বিদ্বেষ, হানাহানি, বৈষম্য, অন্যায়-অবিচার দূর করে সমাজকে শান্তিময় করে তুলতে যার যার অবস্থানে থেকে সবাইকে অবদান রাখতে হবে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে শুক্রবার দেয়া এক বাণীতে তিনি এ আহ্বান জানান। খালেদা জিয়া বলেন, আমি হিন্দু ধর্মাবলম্বী...