সচিব পদে পদোন্নতিতে হঠাত্ এক নিয়ম করা নিয়ে জনপ্রশাসনে প্রশ্ন উঠেছে। হঠাত্ নিয়ম করা হয়েছে—যেসব অতিরিক্ত সচিব ছয় মাস ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসাবে কাজ করেছেন, তাদের সচিব পদে পদোন্নতি দেয়া হবে। আর এ নিয়মেই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দিলরুবা বেগম যিনি একদিনও ভারপ্রাপ্ত সচিব পদে নিয়োজিত ছিলেন না, তাকে সরাসরি সচিব পদে পদোন্নতি দেয়ার নজির রয়েছে এ আমলেই। অবশ্য তিনি সচিব পদেও একদিনও কাজ করার সুযোগ পাননি। কারণ অবসর নেয়ার বয়সের একদিন আগে তাকে সচিব করা হয়। বলা হয়-সামাজিক মর্যাদা আর কিছু আর্থিক সুবিধা পাইয়ে দিতে এমনটা করা হয়। যদিও শত শত কর্মকর্তা অতিরিক্ত সচিব পদ থেকে অবসরে চলে যাচ্ছেন, তাদের মর্যাদা ও আর্থিক সুবিধা কেনো বিবেচনা করা হচ্ছে না বা হয় না সেটি বড় প্রশ্ন হয়ে থাকছে। শুধু তাই নয় ছয় মাস ভারপ্রাপ্ত সচিব পদে কাজ করেননি এমন অন্তত ১৯ জনকে সচিব করারও নজির রয়েছে।

মঙ্গলবার সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের (এসএসবি) সভা ডাকা হয়েছে। এই সভায় অন্যান্য ক্যাডারের কর্মকর্তাদের পদোন্নতি বিবেচনা করার কথা। একই সভায় উঠছে সচিব পদে পদোন্নতি দেয়ার প্রস্তাব। কিন্তু ছয় মাসের বার তৈরি করায় অনেক ভারপ্রাপ্ত সচিব তথা অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসনিক কাঠামোতে ভারপ্রাপ্ত সচিব নামে কোনো পদ নেই) থেকে সচিব পদে পদোন্নতি দেয়ার প্রস্তাব উত্থাপনের কথা রয়েছে।

যেসব অতিরিক্ত সচিব ভারপ্রাপ্ত সচিব পদে কাজ করছেন তারা হচ্ছেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের ফিরোজ সালাউদ্দিন, স্থানীয় সরকার বিভাগের আব্দুল মালেক, পরিসংখ্যান বিভাগের কানিজ ফাতেমা, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয়ের শাহ কামাল, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আখতারি মমতাজ, পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের কামাল উদ্দিন আহমেদ, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য এ এন শামসুদ্দিন আজাদ চৌধুরী, বেসরকারি কমিশনের সদস্য পরিক্ষিত দত্ত চৌধুরী, সম্পদ বড়ুয়া রাষ্ট্রপতির কার্যাালয়, পবন চৌধুরী নির্বাহী চেয়ারম্যান অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ।

শুভ সমরাটজাতীয়
সচিব পদে পদোন্নতিতে হঠাত্ এক নিয়ম করা নিয়ে জনপ্রশাসনে প্রশ্ন উঠেছে। হঠাত্ নিয়ম করা হয়েছে—যেসব অতিরিক্ত সচিব ছয় মাস ভারপ্রাপ্ত সচিব হিসাবে কাজ করেছেন, তাদের সচিব পদে পদোন্নতি দেয়া হবে। আর এ নিয়মেই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দিলরুবা বেগম যিনি একদিনও ভারপ্রাপ্ত সচিব পদে নিয়োজিত ছিলেন না, তাকে...