95125_hasina
বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের চলমান আন্দোলন নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, শিক্ষকরা যেসব সুযোগ-সুবিধা পান সচিবরা সেসব সুযোগ সুবিধা পান না। সচিবরা অবসরে যান ৫৯ বছর বয়সে, আর শিক্ষকরা অবসরে যান ৬৫ বছর বয়সে। তাহলে এখন শিক্ষকদের অবসরের বয়সও কমিয়ে দেই। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অন্য কোন কাজ করতে পারেন না, অথচ শিক্ষকরা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ান। আমি শিক্ষকদের বেতন ৯১ শতাংশ বাড়িয়েছি। তা কি তারা কল্পনা করতে পেরেছেন। এখন তাদের বিষয়টি সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত তারা তাদের বেতনের বর্ধিত অংশ না নিক।
আজ গণভবনে প্রধানমন্ত্রী তার যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের আন্দোলন সম্পর্কে এক সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের আন্দোলনে আমি কেন হস্তক্ষেপ করবো? ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা নষ্ট করার অধিকার তাদের নেই। প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষকরা আন্দোলন করলে করুক। কিন্তু তারা কেন ক্লাস, পরীক্ষা বন্ধ করে আন্দোলন করবে। তাদের যথেষ্ট সুবিধা দেয়া হয়েছে। তারা আন্দোলন করতে থাকুক। এখানে আমার কিছু করার নেই। অর্থমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রীকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা বিষয়টি দেখবেন। শিক্ষকদের কাছে আমার অনুরোধ, আন্দোলন করে ছেলেমেয়েদের ভবিষ্যত নষ্ট করবেন না।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/10/95125_hasina.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/10/95125_hasina.jpgনৃপেন পোদ্দারজাতীয়
বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের চলমান আন্দোলন নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, শিক্ষকরা যেসব সুযোগ-সুবিধা পান সচিবরা সেসব সুযোগ সুবিধা পান না। সচিবরা অবসরে যান ৫৯ বছর বয়সে, আর শিক্ষকরা অবসরে যান ৬৫ বছর বয়সে। তাহলে এখন শিক্ষকদের অবসরের বয়সও কমিয়ে দেই। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অন্য কোন কাজ করতে...