আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।
যুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে যৌন নিপীড়ন বন্ধে ভূমিকা রাখায় শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন কঙ্গোর চিকিৎসক ডেনিস মুকওয়েজ ও ইরাকী মানবাধিকার কর্মী নাদিয়া মুরাদ। আজ শুক্রবার নরওয়ের নোবেল একাডেমি এক ঘোষণায় একথা জানিয়েছে। খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

নোবেল কমিটির সভাপতি বেরিট রেইস-এন্ডারসেন বলেন, এসব অপরাধের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এরা দু’জন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

মুরাদ হচ্ছেন একজন ইয়াজিদি নারী। উল্লেখ্য, ইরাকে ইয়াজিদিরা সংখ্যালঘু। মুরাদ পূর্বে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের কাছে বন্দি থাকা অবস্থায় ধর্ষিত ও নির্যাতিত হয়েছেন।
অন্যদিকে মুকওয়েজ হচ্ছেন কঙ্গোর একজন গাইনোকলোজিস্ট। তিনি ধর্ষণের শিকারদের চিকিৎসা করেন।

এই বছর পুরস্কারটির জন্য মনোনীত হয়েছিল মোট ৩৩১ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

নাদিয়া মুরাদ

নাদিয়া মুরাদ হচ্ছেন একজন ইরাকী অধিকারকর্মী। ২০১৪ সালে জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস প্রায় ৩০০০ ইয়াজিদি নারী ও বালিকাকে অপহরণ করে তাদের ধর্ষণ করে ও বিভিন্ন উপায়ে নির্যাতন করে। অপহৃত নারী ও বালিকাদের মধ্যে একজন হচ্ছেন মুরাদ।

নোবেল কমিটি বলেছে, আইএস সদস্যরা তাদের ওপর পদ্ধতিগতভাবে ও জঙ্গি কৌশলের অংশ হিসেবে নির্যাতন চালায়। এসব নির্যাতন ইয়াজিদি ও অন্যান্য সংখ্যালঘু ধর্মীয় গোষ্ঠীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত করা হয়েছে।

ডেনিস মুকওয়েজ

ডেনিস মুকওয়েজ হচ্ছেন কঙ্গোর একজন গাইনোকোলজিস্ট। তিনি ধর্ষণের শিকারদের চিকিৎসা করে থাকেন। এখন পর্যন্ত তিনি ও তার সহকর্মীরা মিলে ধর্ষণের শিকার হয়েছেন এমন প্রায় তিন হাজার ব্যক্তির চিকিৎসা করেছেন।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। সূত্র : বিবিসি

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/10/24.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/10/24-300x300.jpgশুভ সমরাটআন্তর্জাতিক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক । যুদ্ধে হাতিয়ার হিসেবে যৌন নিপীড়ন বন্ধে ভূমিকা রাখায় শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন কঙ্গোর চিকিৎসক ডেনিস মুকওয়েজ ও ইরাকী মানবাধিকার কর্মী নাদিয়া মুরাদ। আজ শুক্রবার নরওয়ের নোবেল একাডেমি এক ঘোষণায় একথা জানিয়েছে। খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। নোবেল কমিটির সভাপতি বেরিট রেইস-এন্ডারসেন বলেন, এসব...