Brammoman
রাজশাহীতে ৫শ’ টিয়া পাখি মুক্ত করেছে বন বিভাগ। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পাখি পাচারের দায়ে মফিজ উদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন।

রাজশাহী বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে নগরীর কাশিয়াডাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫শ’ পাখিসহ মফিজ উদ্দিনকে আটক করে।

শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মফিজ উদ্দিনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে হাজির করা হয়। আদালতের বিচারক ফয়সাল হক পাখি পাচারকারী মফিজ উদ্দিনকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন। সাজাপ্রাপ্ত মফিজ উদ্দিন ভোলার লালমোহন উপজেলার কুমারখালি গ্রামের সাইদুল হকের ছেলে। মফিজ উদ্দিন এর আগেও রাজশাহী থেকে ৮শ’ পাখি পাচার করতে গিয়ে বন বিভাগের হাতে আটক হয়েছিলেন।

রাজশাহী বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক শাহ চৌধুরী ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর কাশিয়াডাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫শ’ টিয়া পাখিসহ পাচারকারী মফিজ উদ্দিনকে আটক করা হয়। সে পাখিগুলো নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিল। শুক্রবার সকালে তাকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে হাজির করা হয়।

গ্রেফারকৃত মফিজ উদ্দিন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, তিনি গোদাগাড়ী উপজেলার সুলতানগঞ্জ থেকে পাখি কিনে নিয়ে ঢাকায় বিক্রি করতে যাচ্ছিলেন।

আদালতের বিচারক ফয়সাল হক ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, ‘বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে মফিজ উদ্দিনকে তিন মাসের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। দ্বিতীয় দফায় একই ধরনের অপরাধ করায় তাকে এই সাজা দেওয়া হয়। উদ্ধারকৃত সুস্থ পাখিগুলোকে পদ্মার চরের অভায়ারণ্যে অবমুক্ত করা হয়।’

ওয়াজ কুরুনীশেষের পাতা
রাজশাহীতে ৫শ' টিয়া পাখি মুক্ত করেছে বন বিভাগ। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালত পাখি পাচারের দায়ে মফিজ উদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে তিন মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন। রাজশাহী বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে নগরীর কাশিয়াডাঙ্গা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫শ' পাখিসহ মফিজ উদ্দিনকে আটক করে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার...