4_110824
দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত জাপানি নাগরিক হোশি কোনিওর লাশ রংপুর থেকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে না। লাশ রংপুরেই দাফন করার বিষয়ে আলোচনা করছেন ঢাকার জাপানি দূতাবাসের কর্মকর্তারা। রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রের কাছে দাফন-সংক্রান্ত বিস্তারিত জানতে চেয়েছেন তারা। সিটি মেয়র সরফউদ্দিন আহমেদ ঝন্টু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, গতকাল সকালে জাপান দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারি মুঠোফোনে জানতে চান, রংপুরের কবরস্থানে হোশি কোনিওর লাশ দাফনের কোনো ব্যবস্থা করা যাবে কি না। লাশ দাফন সম্পন্ন করতে কত টাকা খরচ হবে। উত্তরে তিনি জানান, তার (কোনিও) মুসলমান হওয়ার প্রমাণ থাকলে কোনো সমস্যা হবে না। দাফনকাজ সম্পন্ন করতে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার টাকা খরচ হবে।’ তবে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাকে এ ধরনের কোনো কিছু বলা হয়নি বলে জানান ঝন্টু। দুপুরে চার সদস্যের একটি জাপানি প্রতিনিধিদল পুলিশ সুপারের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে মামলা-সংক্রান্ত এবং লাশের সৎকারের বিষয়ে নিয়ে কথা হয়েছে বলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে পুলিশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এদিকে জাপানি নাগরিক হোশি কোনিও (৬৬) হত্যার পর ছয় দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো জড়িত খুনিদের চিহ্নিত করতে পারেনি পুলিশ। তবে এ ঘটনায় মহানগর বিএনপির সদস্য রাশেদ-উন-নবী খান বিপ্লব এবং কোনিওর ঘাসের খামার-সংলগ্ন মাছের খামারের মালিক হুমায়ুন কবির হীরাকে খুনের মামলায় আসামি দেখিয়ে মঙ্গলবার ১০ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে তারা খুনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন কি না, খুন-সংক্রান্ত কোনো তথ্য দিয়েছেন কি না সে ব্যাপারে মুখ খুলছেন না তদন্ত কর্মকর্তাসহ পুলিশ কর্মকর্তারা। তবে খুনের তদন্তে অগ্রগতি সম্পর্কে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কাউনিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মামুনুর রশীদ মামুন গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আমরা রাত-দিন কাজ করছি। ঘটনার রহস্য ভেদ করার ক্ষেত্রে অনেকটাই এগিয়েছি। তবে তদন্ত পর্যায়ে সব তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হলে লক্ষ্য অর্জন বাধাগ্রস্ত হবে।’ এদিকে কোনিও খুনের ঘটনায় পুলিশের করা মামলায় মহানগর বিএনপির সদস্য রাশেদ-উন-নবী খান বিপ্লবকে আসামি করে রিমান্ডে নেওয়ার প্রতিবাদ জানিয়ে গতকাল দুপুরে গুপ্তপাড়ার বাসায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। সংবাদ সম্মেলনে বিপ্লবের মা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘আমার ছেলে নির্দোষ। তার পকেটে আমার ওষুধের প্রেসক্রিপশন রয়েছে। শনিবার দুপুরে পুলিশ সাদা পোশাকে এসে বাড়ি থেকে তাকে ধরে নিয়ে যায়। এখন শুনছি তাকে জাপানি নাগরিক খুনের মামলায় আসামি করে রিমান্ডে নিয়েছে। এটি অন্যায় ও ষড়যন্ত্রমূলক’। বিপ্লবের স্ত্রী বলেন, ‘আমার নির্দোষ স্বামীকে মিথ্যা মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে তাকে মুক্তি দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন জানাচ্ছি।’
বিপ্লবের একমাত্র সন্তান অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সিদরাতুল মুনতাহার নেহা বলেন, ‘আমার বাবা কোনো খারাপ কাজ করতে পারেন না। তিনি নির্দোষ। তার মুক্তি চাই। বাবাকে কাছে চাই।’ রংপুর বিএনপির মহানগর নেতা রাশেদ-উন-নবী বিপ্লব কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের সহোদর। উল্লেখ্য, শনিবার সকালে রংপুর নগরী থেকে রিকশায় করে কাউনিয়া উপজেলার সারাই ইউনিয়নের আলুটারি গ্রামে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন হোশি কোনিও। একই গ্রামে দুই একর জমি ইজারা নিয়ে জাপানি কোয়েল ঘাসের চাষ করতেন তিনি। রবিবার ময়নাতদন্তের পর কোনিওর লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গের হিমঘরে রাখা হয়েছে।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/10/4_110824.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/10/4_110824-300x300.jpgঅর্ণব ভট্টপ্রথম পাতা
দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত জাপানি নাগরিক হোশি কোনিওর লাশ রংপুর থেকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে না। লাশ রংপুরেই দাফন করার বিষয়ে আলোচনা করছেন ঢাকার জাপানি দূতাবাসের কর্মকর্তারা। রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রের কাছে দাফন-সংক্রান্ত বিস্তারিত জানতে চেয়েছেন তারা। সিটি মেয়র সরফউদ্দিন আহমেদ ঝন্টু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, গতকাল সকালে জাপান দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারি...