বিশেষ প্রতিবেদক ।
যুদ্ধকালীন বা সংকটে দেশের সব আধাসামরিক ও সহায়ক বাহিনী সশস্ত্র বাহিনীর কর্তৃত্বে অপারেশনাল কমান্ডে থাকবে। কোন প্রেক্ষাপটে সংকটকাল বা ক্রান্তিকাল হিসেবে ধরা হবে, তা ঠিক করবেন সরকারপ্রধান। এসব বিধান যুক্ত করে জাতীয় প্রতিরক্ষা নীতিমালা-২০১৮-এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ নীতিমালা অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

সচিব জানান, সশস্ত্র বাহিনীর যুদ্ধকালীন মোতায়েন কিভাবে হবে, সামরিক ও অসামরিক সম্পর্ক কী হবে, সশস্ত্র বাহিনী ও নাগরিকদের মধ্যে কী সম্পর্ক বজায় থাকবে, প্রতিরক্ষা সক্ষমতা বা সশস্ত্র বাহিনীর মূল সক্ষমতা কী হবে—এসব বিষয়ে নীতিমালায় বিস্তারিত বলা আছে। নিরাপত্তাবিষয়ক জাতীয় কমিটি ও প্রতিরক্ষাসংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি কিভাবে হবে, তাও এ নীতিমালায় বলা আছে।

মোহাম্মদ শফিউল আলম জানান, অনুমোদিত নীতিমালায় গণমাধ্যমের সঙ্গে সামরিক বাহিনীর সম্পর্ক তুলে ধরা হয়েছে। গণমাধ্যম ও সামরিক সম্পর্ক অত্যন্ত সংবেদনশীল। কারণ এ দুটি প্রতিষ্ঠান জাতীয় সক্ষমতার উপাদান। উভয় প্রতিষ্ঠানই নিজ নিজ অবস্থান থেকে জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষায় ভূমিকা পালন করে।

নীতিমালায় এ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে, সচেতন নাগরিক সশস্ত্র বাহিনীর ভালো বন্ধু। জাতীয় নিরাপত্তা সম্পর্কিত অনুমোদিত তথ্য দায়িত্বশীল প্রচারণায় গণমাধ্যম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। সুতরাং বন্ধুপ্রতিম গণমাধ্যম-সামরিক সম্পর্ক অপরিহার্য।

প্রতিরক্ষা নীতিমালায় বলা হয়েছে, যুদ্ধকালীন সামরিক বাহিনীর অপারেশনাল কমান্ডে থাকবেন আধা-সামরিক ও সহায়ক বাহিনীর সদস্যরা। অর্থাৎ বিজিবি, কোস্ট গার্ড, বিএনসিসি, পুলিশসহ অন্যান্য প্রতিরক্ষা বাহিনী সশস্ত্র বাহিনীর অপারেশনাল কমান্ডে থাকবে।

বর্তমানে নিরাপত্তাবিষয়ক জাতীয় কমিটির প্রধান হলেন প্রধানমন্ত্রী। অনুমোদিত নীতিমালায়ও একই বিধান রাখা হয়েছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর নেতৃত্বে প্রতিরক্ষাসংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি পরিচালিত হবে। বরাবরই এ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বে থাকেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া প্রতিরক্ষাবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটি এখনকার মতোই সংসদ কর্তৃক গঠন করা হবে।

সচিব জানান, বাংলাদেশের সংবিধানে উদ্ধৃত মূল্যবোধসংবলিত রাষ্ট্রের মৌলিক উদ্দেশ্য ও আদর্শিক রূপরেখা গঠন করে, যা বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও বৈদেশিক নীতি এবং সার্বিক জাতীয় স্বার্থ সমুন্নত রাখার ক্ষেত্রে মূল ভিত্তি প্রদান করে।

নীতিমালার শেষাংশে বলা হয়েছে, রক্তক্ষয়ী স্বাধীনতাযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। ৭ মার্চ ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সবাইকে প্রত্যেক ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোল—এ উদাত্ত আহ্বান জানিয়ে বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার ডাক দিয়ে জনসাধারণকে নিয়ে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। এই ধারা অব্যাহত আছে।

গতকালের মন্ত্রিসভায় রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণকাজে ভারতীয় পরামর্শক সেবা নেওয়ার জন্য চুক্তির একটি সংযোজন অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন (বিএইসি) ও ভারতের গ্লোবাল সেন্টার ফর নিউক্লিয়ার এনার্জি পার্টনারশিপের (জিসিএনইপি) মধ্যে এটি স্বাক্ষর হবে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন রাশিয়ার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এটমস্ট্রয়এক্সপোর্টের মাধ্যমে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এটি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে এ বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণকাজ সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের জন্য রাশিয়া ছাড়াও একই ধরনের টেকনোলজি ব্যবহার করে পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনকারী ভারতের পরামর্শক বা বিশেষজ্ঞ প্রতিষ্ঠানের সহায়তা নেওয়া হবে।

এ ছাড়া মন্ত্রিসভায় ভেজাল সার বিক্রির জন্য শাস্তি বাড়িয়ে সার (ব্যবস্থাপনা) (সংশোধন) আইন-২০১৮-এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বিদ্যমান আইনে ভেজাল সার বিক্রির দায়ে ছয় মাস কারাদণ্ড বা ৩০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের বিধান রয়েছে। প্রস্তাবিত আইনে দুই বছরের কারাদণ্ড বা পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

সভায় নেপালের রাজধানী কাঠমাণ্ডুতে বিমান দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের স্মরণে শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। এ ছাড়া মুক্তিযোদ্ধা ফেরদৌসী প্রিয়ভাষিণীর মৃত্যুতেও শোক প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। বাংলাদেশ জাতিসংঘের কাছ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনের স্বীকৃতি পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা।

ছেলেরা ভালো খেলেছে, মনোবল হারানোর কিছু নেই : প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা ভালো খেলেছে, তাদের মনোবল হারানোর কিছু নেই, হতাশার কিছু নেই। গতকাল সোমবার মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠক শেষে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত নিদাহাস ট্রপির ফাইনাল খেলায় বাংলাদেশের পরাজয় নিয়ে এক অনির্ধারিত আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের পরাজয় নিয়ে আলোচনার সূত্রপাত ঘটিয়ে বলেন, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ শেষ বলে চার রান করে জয়লাভ করেছিল, অন্যদিকে ফাইনালে শেষ বলে ছয় রান করে ভারত জিতেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ছেলেরা ভালো খেলেছে। ওদের হতাশ হওয়ার কিছু নেই। আমি ওদের হতাশ না হতে বলেছি।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/03/419.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/03/419-300x300.jpgবাহাদুর বেপারীজাতীয়
বিশেষ প্রতিবেদক । যুদ্ধকালীন বা সংকটে দেশের সব আধাসামরিক ও সহায়ক বাহিনী সশস্ত্র বাহিনীর কর্তৃত্বে অপারেশনাল কমান্ডে থাকবে। কোন প্রেক্ষাপটে সংকটকাল বা ক্রান্তিকাল হিসেবে ধরা হবে, তা ঠিক করবেন সরকারপ্রধান। এসব বিধান যুক্ত করে জাতীয় প্রতিরক্ষা নীতিমালা-২০১৮-এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রীর...