006165790b9458a1c6310f326d7ffabe-mobile
এ বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক, অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন এই তিন মাসে স্মার্টফোনের বিক্রি বাড়ার হার কমেছে বিশ্বজুড়ে। ২০১৩ সালের পর এটাই মোবাইল ফোন বিক্রির সবচেয়ে ধীর গতি। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান গার্টনারের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে সাড়ে ১৩ শতাংশ হারে ৩৩ কোটি ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে। চীনের স্মার্টফোন বাজারে বিক্রি কমে যাওয়ার প্রভাব পড়েছে বাজারে।
গার্টনার জানিয়েছে, ২০১৪ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে ২৯ কোটি ৩৮ লাখ ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছিল যা এ বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে এসে ৩২ কোটি ৯৬ লাখ ৭০ হাজার ইউনিট হয়েছে। যে গতিতে মোবাইল ফোন বিক্রির হার বাড়ছিল, সেটা নেমে আসল।
গার্টনার রিসার্চের পরিচালক অংশুল গুপ্ত বলেন, দ্রুত বর্ধনশীল বাজারগুলো সাশ্রয়ী দামের থ্রিজি ও ফোরজি স্মার্টফোনের বিক্রির হার বেড়ে চলেছে। কিন্তু বিশ্বের কোথাও কোথাও এই বিক্রির হার কোথাও বেশ কমেছে, আবার কোথাও বাড়ছে। এটারই সামগ্রিক চিত্র প্রভাব ফেলেছে মোট বিক্রিতে। এশিয়া-দক্ষিণ মহাসাগরীয় অঞ্চল, পূর্ব ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকাতে চীনা স্মার্টফোন ও স্থানীয় ব্র্যান্ডগুলোর পণ্য বিক্রি বাড়ছে। যদিও বিশ্বের অন্যতম বড় বাজার চীনেই গত বছরের তুলনায় স্মার্টফোন বিক্রির হার কমেছে চার শতাংশ।
গার্টনারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, এপ্রিল থেকে জুন—এই তিন মাসে স্মার্টফোনের বাজার দখলের হিসেবে শীর্ষে ছিল স্যামসাং। এই প্রান্তিকে ২১ দশমিক নয় শতাংশ বাজার দখল করে তারা। অ্যাপল দ্বিতীয় অবস্থানে। অ্যাপলের দখলে বাজারে ১৪ দশমিক ছয় শতাংশ। বাজারের সাত দশমিক আট শতাংশ দখল নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে হুয়াই। পাঁচ শতাংশ দখল নিয়ে চতুর্থ অবস্থানে লেনোভো। চার দশমিক নয় শতাংশ নিয়ে পাঁচে শিওয়ামি।
অপারেটিং সিস্টেমের হিসাব ধরলে বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে গুগলের অ্যান্ড্রয়েডের জনপ্রিয়তার ওপর প্রভাব পড়তে দেখা গেছে। এশিয়ার বাজারে অ্যাপলের ভালো অবস্থানে আসা ও চীনের বাজারে অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন বিক্রি কমে যাওয়া এর কারণ বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা। বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকগুলোর তুলনা করলে দেখা যাচ্ছে, ১১ শতাংশ বেড়েছে অ্যান্ড্রয়েড চালিত ফোনের ব্যবহার। বর্তমানে ৮২ দশমিক দুই শতাংশই অ্যান্ড্রয়েডের দখলে। অ্যাপলের আইওএস রয়েছে দুইয়ে (১৪ দশমিক ছয় শতাংশ)। আড়াই শতাংশ দখল নিয়ে তিনে রয়েছে উইন্ডোজ, শূন্য দশমিক তিন শতাংশ বাজার ব্ল্যাকবেরির।
স্মার্টফোন ও ফিচার ফোন মিলিয়ে সব ধরনের মোবাইল বিক্রির ক্ষেত্রেই ধীর গতি দেখা গেছে। গত বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে ৪৪ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার মোবাইল ফোন বিক্রি হয়েছিল, সেখানে এ বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে এসে তা দাঁড়িয়েছে ৪৪ কোটি ৫৭ লাখ পাঁচ হাজারে। বিক্রির মোট সংখ্যা বাড়লেও বৃদ্ধির হার আগে যেমন ছিল, তেমনটি নেই।
সব ধরনের ফোনের বিক্রি মিলিয়ে ১৯ দশমিক নয় শতাংশ বাজার দখলে রেখে মোবাইল ফোনের বাজারে এখন শীর্ষে রয়েছে স্যামসাং। অ্যাপলের দখলে দশ দশমিক আট শতাংশ, মাইক্রোসফটের দখলে ছয় দশমিক দুই শতাংশ, হুয়াইয়ের দখলে পাঁচ দশমিক নয় শতাংশ, এলজির দখলে চার শতাংশ, লেনোভোর দখলে তিন দশমিক সাত শতাংশ, শিয়াওমির দখলে তিন দশমিক ছয় শতাংশ, টিসিএলের দখলে তিন দশমিক পাঁচ শতাংশ এবং মাইক্রোম্যাক্সের দখলে দুই দশমিক দুই শতাংশ। (পিটিআই, রয়টার্স)

অর্ণব ভট্টবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
এ বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিক, অর্থাৎ এপ্রিল থেকে জুন এই তিন মাসে স্মার্টফোনের বিক্রি বাড়ার হার কমেছে বিশ্বজুড়ে। ২০১৩ সালের পর এটাই মোবাইল ফোন বিক্রির সবচেয়ে ধীর গতি। বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান গার্টনারের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে সাড়ে ১৩ শতাংশ হারে ৩৩ কোটি ইউনিট স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে। চীনের স্মার্টফোন...