বিনোদন প্রতিবেদক ।
বলিউডের তিনি ‘মহানায়িকা’ হলেও শ্রীদেবী বাস্তবে অনেকের কাছে ছিলেন ‘খলনায়িকা’। যেমন বনি কাপুরের প্রথম স্ত্রীর ছেলে বলিউড তারকা অর্জুন কাপুর কিছুতেই মা হিসেবে মেনে নিতে পারেননি শ্রীদেবীকে। খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।
কিন্তু শ্রীদেবীর মৃত্যু সব দূরত্ব দূর করে দিয়েছে। ক্ষোভ, অভিমান ভুলে ঘরে ফিরেছেন কাপুর পরিবারের বড় ছেলে।

কাপুর পরিবারের অনেকে বনি এবং মোনা কাপুরের বিয়ে ভাঙার পেছনে শ্রীদেবীকে দায়ী করেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও কখনো ভেঙে পড়েননি শ্রীদেবী। নিজের ক্যারিয়ার এবং পরিবার সুন্দরভাবে সামলেছেন। বনি কাপুরের মা একদমই পছন্দ করেননি শ্রীদেবীকে। শোনা যায়, একবার প্রকাশ্যে তিনি শ্রীদেবীকে অপমান করেছিলেন। বনির মা কিছুতেই মানতে পারেননি ছেলের সঙ্গে মোনার দাম্পত্য সম্পর্ক ভেঙে যাওয়া। মোনা কাপুরের সঙ্গে শ্রীদেবীর সম্পর্ক মোটেও ভালো ছিল না। আর তাই বনি-মোনার ছেলে অর্জুন ও অনশুলার মনেও শ্রীদেবীকে ঘিরে একরাশ ঘৃণার জন্ম নিয়েছিল।
শ্রীদেবীকে বিয়ের পর মোনা বনি কাপুর থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে নেন। ছেলে অর্জুন আর মেয়ে অংশুলাকে নিয়ে থাকতেন মোনা। নীরবে চোখের জল ফেলতেন। মায়ের এই কান্না বদলে দেয় অর্জুনকে। তাই একই পরিবারের হওয়া সত্ত্বেও কখনো শ্রীদেবীর সঙ্গে কোনো সম্পর্ক রাখেননি। শোনা যায়, বনি তাঁর আগের স্ত্রীর সঙ্গে কোনো সম্পর্ক রাখুক, শ্রীদেবী নিজেও নাকি তা পছন্দ করতেন না। প্রথম স্ত্রী মোনা মারা যাওয়ার পর বনি কাপুর সব নিয়ম-রীতি মেনে তাঁর শেষকৃত্য করেছিলেন। এ কারণে নাকি বলিউডের ‘রূপ কি রানি’ বনির ওপর খুব বিরক্ত হন।

অর্জুন কাপুরের সঙ্গে শ্রীদেবীর এই দূরত্ব বারবার প্রকাশ্যে এসে গেছে। অর্জুন একাধিকবার জানিয়েছেন, তিনি শ্রীদেবীকে পছন্দ করেন না। একবার এক পত্রিকায় সাক্ষাৎকারে এই বলিউড তারকা শ্রীদেবী সম্পর্কে বলেন, ‘তিনি কখনোই আমার মা হতে পারেন না। এমনকি তিনি মায়ের মতোও হতে পারেন না। তিনি শুধু আমার বাবার স্ত্রী। তাঁদের দুই মেয়ের আমার কাছে কোনো গুরুত্ব নেই।’
অর্জুন আরও বলেন, ‘আমাদের মধ্যে একটাই সম্পর্ক, আমি যাকে ভালোবাসি, তিনিও তাকে ভালোবাসেন।’ এ ক্ষেত্রে পরিষ্কার, এই ‘তিনি’ হচ্ছেন বনি কাপুর।

তবে শ্রীদেবীর মৃত্যু আজ সব দূরত্ব দূর করে দিয়েছে। সব তিক্ততা ভুলে পরিবারের চরম সংকটে বাবার পাশে দাঁড়ান অর্জুন। শ্রীদেবীর মৃত্যুর খবর পেয়ে শুটিং ছেড়ে মুম্বাই ফিরে আসেন। তা-ই নয়, এত দিন দুই বোন জাহ্নবী আর খুশিকে দূরে রেখেছিলেন তিনি, তাদেরও কাছে টেনে নিয়েছেন। অর্জুন জানেন মা হারানোর যন্ত্রণা। দুবাইতে বাবা বনি কাপুরকে আইনি মারপ্যাঁচে ক্লান্ত-পরিশ্রান্ত সেটা দেখে চুপ করে বসে থাকতে পারেননি। এই প্রতিকূল অবস্থায় বাবার পাশে দাঁড়াতে উপযুক্ত সন্তানের মতো দুবাই উড়ে যান। বাবা বনি কাপুরের বিপদে বটগাছের মতো পাশে দাঁড়ান।

শ্রীদেবীর নিথর প্রাণহীন দেহ বাবা এবং কাকা সঞ্জয় কাপুরের সঙ্গে মুম্বাই নিয়ে আসেন অর্জুন। বিমানবন্দর থেকে আসার পর , রাতে বনি কাপুরের বাড়িতে যান অনশুলা ও অর্জুন কাপুর। মিডিয়ার ফ্ল্যাশবাল্বের ঝলকানি এড়িয়েই গ্রিন একর্সের বাড়িতে ঢুকে যায় তাদের গাড়ি। পরদিন শ্রীদেবীর অন্ত্যেষ্টির পুরো প্রক্রিয়া নিজের হাতে সামলেছেন বলিউডের এই তরুণ নায়ক। সাদা ফুল দিয়ে গাড়ি সাজানো থেকে শেষকৃত্যের অনুষ্ঠান সব নিজে দাঁড়িয়ে থেকে তদারকি করেন।

অর্জুনের এ ভূমিকায় নেটিজেনরা খুবই মুগ্ধ। অনেকেই টুইটারে লিখেছেন, অর্জুন একটা রত্ন। শ্রীদেবীর মৃত্যুর পর তিনি যেভাবে পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে বড় ছেলের ভূমিকা পালন করেছে সেটা সত্যি তার মায়ের শিক্ষাকেই সামনে নিয়ে এসেছে। অর্জুনের জন্য গর্ব অনুভব করছি।

অনেকেই বলেছেন, অর্জুনের যখন মা মারা যান তখন শ্রীদেবী কিংবা তার দুই কন্যা অর্জুনের পাশে না দাঁড়ালেও অর্জুন যেভাবে খুশি ও জাহ্নবীর পাশে দাঁড়িয়েছে তাতে বোঝা যায় যে খুশি ও জাহ্নবী আজ থেকে একজন বড় ভাইও পেয়ে গেছে।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/03/9.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/03/9-300x300.jpgজান্নাতুল ফেরদৌস মেহরিনবিনোদন
বিনোদন প্রতিবেদক । বলিউডের তিনি ‘মহানায়িকা’ হলেও শ্রীদেবী বাস্তবে অনেকের কাছে ছিলেন ‘খলনায়িকা’। যেমন বনি কাপুরের প্রথম স্ত্রীর ছেলে বলিউড তারকা অর্জুন কাপুর কিছুতেই মা হিসেবে মেনে নিতে পারেননি শ্রীদেবীকে। খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। কিন্তু শ্রীদেবীর মৃত্যু সব দূরত্ব দূর করে দিয়েছে। ক্ষোভ, অভিমান ভুলে...