84780_f1

মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে দেশের সড়ক ও মহাসড়ক। গতকাল সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে শতাধিক। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের বাসাইলে বাস খাদে পড়ে মহিলাসহ নিহত হয়েছেন ৯ জন। এতে আহত হয়েছেন ২৫ জন। এছাড়া গাজীপুর মহানগরীর হায়দরাবাদ এলাকায় অরক্ষিত একটি রেল ক্রসিংয়ে ডেমু ট্রেনের ধাক্কায় নিহত হয়েছে ৮ জন। ওসমানীনগরে যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে ৩ জন নিহত ও ২০ জন আহত হয়েছে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ২ জন। মুন্সিগঞ্জে মারা গেছেন মোটরসাইকেলের ২ আরোহী। মাগুরায় মারা গেছেন আরও ২ জন। এদিকে ঈদের আগে ও পরের ৪ দিনে অন্তত ৫৩ জনের মৃত্যু হয়।
স্টাফ রিপোর্টার, টাঙ্গাইল ও বাসাইল প্রতিনিধি জানান, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পাটখাগুড়ি এলাকায় মধুপুর থেকে ছেড়ে আসা বিনিময় পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে মহিলাসহ ৯ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ২৫ জন। বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৩টার দিকে ঘটনাটি ঘটে। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি হুমায়ন কবির ও বাসাইল থানার ওসি ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, বিনিময় পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস ধনবাড়ী থেকে ঢাকা যাচ্ছিল। বাসটি মহাসড়কের পাঠখাগড়ী পৌঁছলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে পানিতে ডুবে যায়। এ পর্যন্ত ৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যরা উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে। আহতদের টাঙ্গাইল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের পরিচয় জানা যায়নি।
স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে জানান, গাজীপুর মহানগরীর হায়দরাবাদ এলাকায় অরক্ষিত একটি রেলক্রসিং এ ডেমু ট্রেনের ধাক্কায় শিশু ও নারীসহ একটি সিএনজি অটোরিকশার চালকসহ ৮ জন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- পোশাক শ্রমিক শাহআলম (৪০), তার স্ত্রী পেয়ারা খাতুন (৩৫) ও তাদের দুই সন্তান সাদিয়া (৮) ও ইয়ামিন (৬), শাহ আলমের বোন সবুরা খাতুন (১৬), খালাত ভাই বাবুল (২৪), শালিকা তারিমন (১৮) ও চালক মোস্তফা (২০)। তাদের গ্রামের বাড়ির নরসিংদী জেলায়। নিহতদের মরদেহ হাসপাতালে নেয়া হলে এবং ঘটনাস্থলে বিপুলসংখ্যক লোকজনের ভিড় জমে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে নিহতদের স্বজনরা হাসপাতালে পৌঁছে কান্নায় ভেঙে পড়েন। তাদের আহাজারিতে গোটা এলাকায় শোকাবহ পরিবেশের সৃষ্টি হয়।
রেলওয়ে পুলিশের এএসআই দাদন মিয়া ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে ঢাকা-জয়দেবপুর রেলরুটের জয়দেবপুর-টঙ্গী স্টেশনের মাঝামাঝি এলাকার হায়দরাবাদে এ দুর্ঘটনা ঘটে। হায়দারাবাদ এলাকার অস্থায়ী একটি রেলক্রসিং পার হওয়ার সময় সিএনজিটিকে ধাক্কা ঢাকাগামী একটি ডেমু ট্রেন। এতে অটোরিকশাটি ট্রেনের সামনের অংশে আটকে যায়। চালক ট্রেনটি থামানোচেষ্টা করলে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে গিয়ে ট্রেনটি থামে। এ সময় স্থানীয়রা অটোরিকশাটিকে ট্রেনের সামনে থেকে টেনে আলাদা করেন। এ আধা কিলোমিটারজুড়ে রেল লাইনের পাশে নিহতদের মরদেহ ছড়িয়েছিটিয়ে পড়ে থাকে এবং অটোরিকশা চালকের মরদেহ অটোরিকশায় আটকে থাকে। এতে চালক, নারী ও শিশুসহ সিএনজির আট যাত্রীই নিহত হন। খবর পেয়ে গাজীপুর ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকর্মীরা মরদেহগুলো উদ্ধার করে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন এবং নিহতদের স্বজনদের অপেক্ষায় জরুরি বিভাগেই মরদেহগুলো রেখে দেয় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত। বিকাল সাড়ে ৫টায় চালক মোস্তফার স্বজনরা হাসপাতালে এসে বিনা ময়নাতদন্তে তার মরদেহ নিয়ে যায়।
জয়দেবপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার হাসিবুর রহমান ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, নিহত শাহ আলম গাজীপুর নগরের খাইলকৈর এলাকার আকমলের বাড়িতে ভাড়ায় থেকে স্থানীয় এমএম গার্মেন্টস এ চাকরি করতেন। ঈদের পর স্ত্রী-সন্তান ও আত্মীয়দের নিয়ে তিনি খাইলকৈরের বাসায় আসছিলেন। টঙ্গী রেলওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আলাউদ্দিন, শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপির বাড়ি সংলগ্ন এলাকায় যে রেল ক্রসিংটিতে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ওই রেলক্রসিংটি অননুমোদিত হওয়ায় কোন সিগন্যাল বার ছিল না। এমনকি গেটও ছিল না।
রেলওয়ের কমলাপুর থানার ওসি আবদুুল মজিদ হাসপাতালে এসে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, এ ঘটনায় তিনি ট্রেনের চালক বা রেলওয়ের কারও কোন ত্রুটি দেখছেন না। অটোরিকশার চালকের ত্রুটির কারণেই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। নিহতদের স্বজনরা ইচ্ছে করলে ময়নাতদন্তে মরদেহগুলো নিয়ে গিয়ে দাফন করতে পারবেন। তাতে আইনি কোন বাধা নেই।
ওসমানীনগর (সিলেট) প্রতিনিধি জানান, সিলেটের ওসমানীনগরে যাত্রীবাহী বাস খাদে পড়ে ঘটনাস্থলে ৩ জন নিহত এবং নারী-শিশুসহ কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। নিহতরা হচ্ছেন, হবিগঞ্জের নোয়াগাঁও গ্রামের সুজানা বেগম (৩৫) এবং মিন্নি বেগম (৩০)। এদের মধ্যে দ্বিখণ্ডিত হয়ে নিহত হওয়া যুবকের পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, সে দুর্ঘটনাকবলিত বাসের হেলপার ছিল। গুরুতর আহতদের সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের ব্রা?হ্মণগ্রাম এলাকায় দুর্ঘটনাটি ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ব্রা?হ্মণবাড়িয়া থেকে ছেড়ে আসা সিলেটগামী যুগান্তর পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো-জ ১১-০৮৭৭) দ্রুতগতির যাত্রীবাহী বাসটি ব্রা??হ্মণগ্রাম নামক এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের পাশের একটি খাদে পড়ে যায়। এতে ঘটস্থলেই তিনজন মারা যায়। খবর পেয়ে তাজপুর ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নারী-শিশুসহ অন্তত ১০ জনকে গুরুতর অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। বাকিদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়।
বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি জানান, নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়া-হাটিকুমরুল মহাসড়কের আইড়মারী এলাকায় বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নিহত ও কমপক্ষে ৪০ জন আহত হয়েছে। এর মধ্যে ৩০ জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী আরিক পরিবহন (ঢাকা-জ-৩৭৬৭) নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের খাদে উল্টে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই মোস্তাফিজুর (৩৫) নামে এক যাত্রী মারা যান ও অধিকাংশ যাত্রীই আহত হন।
তারাকান্দা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি জানান, ময়মনসিংহের তারাকান্দায় বুধবার রাতে মাইক্রোবাস চাপায় এক সিএনজি যাত্রী নিহত হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ময়মনসিংহ-শেরপুর মহাসড়কের উপজেলার মধুপুর নামক স্থানে ময়মনসিংহগামী সিএনজিকে পেছন থেকে একটি যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দিলে সিএনজিযাত্রী সোহরাব হোসেন (৪০) সড়কে পড়ে যায়। বিপরীত দিক থেকে আসা মাইক্রোবাস চাপা দিলে ঘটনাস্থলে মারা যায়। সে ফুলপুর উপজেলার ইমাদপুর গ্রামের ছাবেদ আলীর পুত্র।
ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ভালুকা ডিগ্রি কলেজের সামনে বুধবার বিকালে ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বৃষ্টি পরিবহনের একটি বাস রাস্তা পার হওয়ার সময় উপজেলার ভাণ্ডাব গ্রামের আবদুর রহিমের পুত্র জুয়েল (৩০)কে চাপা দিলে গুরুতর আহত হন। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাতে তার মৃত্যু হয়:
মৌলভীবাজারপ্রতিনিধি জানান, মৌলভীবাজারের-কুলাউড়া সড়কের রাজনগর উপজেলার গালফ্‌ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে দ্রুতগামী একটি প্রাইভেট কারের চাপায় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। ঘটনা ঘটেছে গতকাল দুপুরে। ২৫০ শয্যার হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডা.পলাশ রায় ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে গতকাল জানিয়েছেন নিহত বেলাল মিয়ার পা ও মাথায় গুরুতর জখম ছিল। ময়নাতদন্তের পর লাশ পরিবারের লোকজন নিয়ে গেছে।

হীরা পান্নাপ্রথম পাতা
মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে দেশের সড়ক ও মহাসড়ক। গতকাল সারা দেশে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে শতাধিক। এর মধ্যে টাঙ্গাইলের বাসাইলে বাস খাদে পড়ে মহিলাসহ নিহত হয়েছেন ৯ জন। এতে আহত হয়েছেন ২৫ জন। এছাড়া গাজীপুর মহানগরীর হায়দরাবাদ এলাকায় অরক্ষিত একটি রেল ক্রসিংয়ে ডেমু ট্রেনের ধাক্কায়...