1436982287

বান্দরবানের সীমান্ত এলাকা থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দুই ‘অপহূত’ সদস্যকে উদ্ধার করেছে বিজিবি। বান্দরবানের বলিপাড়া ও আলী কদম এলাকার সীমান্তবর্তী পাহাড়ী জঙ্গলে অভিযান চালানোর সময় তাদের উদ্ধার হয়। এদের মধ্যে একজন অসুস্থ ছিলেন। উদ্ধারের পর তার সুচিকিত্সা নিশ্চিত করে বিজিবি। বর্তমানে তারা বিজিবি হেফাজতে সুস্থ রয়েছেন। গতকাল পিলখানায় বিজিবি সদর দফতরে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে বিজিবি’র উপ-মহাপরিচালক (অপারেশন ও প্রশিক্ষণ) কর্নেল খোন্দকার ফরিদ হাসান মিয়ানমারের অপহূত দুই সেনা সদস্য উদ্ধারের খবরটি জানানো হয়। তবে তাদের নাম ও ছবি প্রকাশ করা হয়নি।

খোন্দকার ফরিদ হাসান বলেন, গত ৫ জুলাই থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত বান্দরবান সীমান্তে মেইন পিলার ৬৭ হতে ট্রাইজংশন পর্যন্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান চলাকালীন মঙ্গলবার দুইজন মিয়ানমারের নাগরিককে উদ্ধার করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তারা নিজেদের মিয়ানমার সেনা সদস্য বলে দাবি করেন। এদের মধ্যে একজন অসুস্থ থাকায় তাকে প্রয়োজনীয় চিকিত্সা দেয়া হয়।

ঐ কর্মকর্তা আরো জানান, মিয়ানমারের দুই সেনা সদস্যরা সন্ত্রাসীরা অপহরণ করে সীমান্ত এলাকায় অবস্থানের সময় বাংলাদেশী যৌথ অপারেশন দলের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। বিষয়টি ইতোমধ্যে মিয়ানমার বিজিপি ও অন্যান্য কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। ঐ দুই সেনা সদস্যকে দ্রুত বিজিবির কাছ থেকে গ্রহণ করার জন্য বিজিপিকে অনুরোধ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৭ জুন কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তে নাফ নদীতে বিজিবির ওপর মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি গুলি চালিয়ে নায়েক আবদুর রাজ্জাককে অস্ত্রসহ ধরে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে এক সপ্তাহ ধরে টালবাহানার পর ২৬ জুন নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দেয়। এর আগে ২০১৪ সালের ২৭ মে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তে বিজিপি সদস্যরা গুলি করে বাংলাদেশের বিজিবি সদস্য নায়েক মিজানুর রহমানকে হত্যা করে।

তুনতুন হাসানপ্রথম পাতা
বান্দরবানের সীমান্ত এলাকা থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর দুই ‘অপহূত’ সদস্যকে উদ্ধার করেছে বিজিবি। বান্দরবানের বলিপাড়া ও আলী কদম এলাকার সীমান্তবর্তী পাহাড়ী জঙ্গলে অভিযান চালানোর সময় তাদের উদ্ধার হয়। এদের মধ্যে একজন অসুস্থ ছিলেন। উদ্ধারের পর তার সুচিকিত্সা নিশ্চিত করে বিজিবি। বর্তমানে তারা বিজিবি হেফাজতে...