আদালত প্রতিবেদক ।
বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আমাকে যত মামলা দিয়ে জর্জরিত করা হচ্ছে, আমি তত বেশি মানুষের সহানুভূতি ও সমর্থন পাচ্ছি।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।
জনগণ বিএনপির সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছে। বর্তমান শাসকদল ‘রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে’আমার বিরুদ্ধে ৩৬টি মামলা দায়ের করেছে। আমার বিরুদ্ধে দায়ের করা এসব মামলার কোনো ভিত্তি নেই।’

তিনি বলেন, ‘আমি রাজনীতিতে সক্রিয় বলে আমাকে ক্ষমতাসীনরা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে বিবেচনা করে। অথচ শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে দায়ের করা দুর্নীতির মামলাগুলো তুলে নেয়া হয়। অসত্য, ভিত্তিহীন অভিযোগ ও অপপ্রচার চালিয়ে এবং জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করতে ব্যর্থ হয়ে এ সব মামলার আশ্রয় নিয়েছে সরকার।’

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বৃহস্পতিবার চতুর্থ দিনের মতো আত্মপক্ষ সমর্থন করে আদালতে বক্তব্য প্রদানকালে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা ৫০ মিনিট থেকে দুপুর ১২টা ৫৫ মিনিট পর্যন্ত বকশীবাজারে আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে স্থাপিত ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ ড. আখতারুজ্জামানের আদালতে বক্তব্য উপস্থাপন করেন সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী। পরে বিচারক ২৩ নভেম্বর এ মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ‘আমাকে হেনস্তা করার ও জনগণের সামনে হেয় করার চেষ্টা হয়েছে, কিন্তু তাদের সেই চেষ্টা সফল হয়নি; হবেও না ইনশাআল্লাহ। বরং এসব করে তারাই জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। কারণ, এ দেশের মানুষ অনেক সচেতন এবং তারা সত্য ও মিথ্যার ফারাক সহজে বুঝতে পারে। তাই যতই মামলা দিয়ে জর্জরিত করা হচ্ছে, তত বেশি মানুষের সহানুভূতি ও সমর্থন পাচ্ছি। জনগণ আমাদের সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছে।

এর আগে বেলা পৌনে ১১টার দিকে রাজধানীর গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা’থেকে আদালতের উদ্দেশে বের হন সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তিনি বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে আদালতে পৌঁছান।

এর আগে গত ৯ নভেম্বর খালেদা জিয়া তৃতীয় দিনের মতো আত্মপক্ষ সমর্থন করে বক্তব্য দেন। এদিন জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির অভিযোগে দায়ের করা মামলায় খালেদা জিয়া স্থায়ী জামিনের জন্য আবেদন করলে তা খারিজ করে দেন আদালত। পরে বিচারক আজ এ মামলার পরবর্তী সময়ে শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করে দেন।

এর আগে গত ২ নভেম্বর খালেদা জিয়া দুই মামলায় স্থায়ী জামিনের আবেদন করলে বিচারক তা নাকচ করে দেন। ফলে এখন প্রতি সপ্তাহেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী আদালতে হাজিরা দিতে যাচ্ছেন।

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক হারুন-অর-রশিদ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১৪ সালের ১৯ মার্চ আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ঢাকার তৃতীয় বিশেষ জজ আদালতের বিচারক বাসুদেব রায়।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী (পলাতক), হারিছের তখনকার সহকারী একান্ত সচিব ও বিআইডব্লিউটিএর নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

এ ছাড়া জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের দুই কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৪৩ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় মামলা করে দুদক।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2017/11/১1.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2017/11/১1-300x300.jpgজান্নাতুল ফেরদৌস মেহরিনআইন-আদালত
আদালত প্রতিবেদক । বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আমাকে যত মামলা দিয়ে জর্জরিত করা হচ্ছে, আমি তত বেশি মানুষের সহানুভূতি ও সমর্থন পাচ্ছি।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। জনগণ বিএনপির সঙ্গে সম্পৃক্ত হচ্ছে। বর্তমান শাসকদল ‘রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে’আমার বিরুদ্ধে ৩৬টি মামলা দায়ের করেছে। আমার বিরুদ্ধে দায়ের করা...