আন্তর্জাতিক ডেস্ক ।
বাড়ির সবাই ঘুমিয়ে পড়লে প্রতি রাতে বোনের উপর চলত পাশবিক যৌন নির্যাতন। আর এই ঘটনা যাতে কেউ বুঝতে না পারে, সে জন্য তার মুখ বেঁধে দেয়া হত।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।
নয় মাস ধরে দিনের পর দিন চলে এই নির্যাতন। পরে মেয়েটির শরীরে অস্বাভাবিকত্ব নজরে আসার পর তাকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়।

আর তখনই প্রকাশ্যে আসে আসল ঘটনা। মেয়েটি তখন প্রায় ৩০ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা। গত সোমবার একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেয় মেয়েটি। সম্প্রতি ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাতের পাটানর সারিয়াদ নামে একটি গ্রামে।

হাসপাতাল সূত্র জনা যায়, সোমবার মেয়েটি একটি কন্যা সন্তানের জন্ম দেয়। মেয়েটি সুস্থ থাকলেও লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে সদ্যোজাতকে।
টাইমস অব ইন্ডিয়াকে নির্যাতিতার মা বলেন, ‘আমরা ভেবেছিলাম মেয়ের টিউমার জাতীয় কিছু একটা হয়েছে। কিন্তু মেয়ে যে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছে তা ভাবতেও পারিনি।’

পুলিশ সূত্র জানায়, ঘটনার পর থেকেই বেপাত্তা মেয়েটির ১৯ বছরের অভিযুক্ত দাদা। তার বিরুদ্ধে ৩৭৬ ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্র আরো জনায়, প্রাথমিক ভাবে মেয়েটির বয়স ১৭ বলে জানা গেছে। বয়স সঠিক ভাবে নির্ধারিত হওয়ার পর প্রয়োজনে নাবালক, নাবালিকা যৌন অপরাধ রোধ আইন (পকসো) প্রয়োগ করা হতে পারে। ইতিমধ্যে মেয়েটির বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2017/11/520.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2017/11/520-300x300.jpgশিশির সমরাটআন্তর্জাতিক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক । বাড়ির সবাই ঘুমিয়ে পড়লে প্রতি রাতে বোনের উপর চলত পাশবিক যৌন নির্যাতন। আর এই ঘটনা যাতে কেউ বুঝতে না পারে, সে জন্য তার মুখ বেঁধে দেয়া হত।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। নয় মাস ধরে দিনের পর দিন চলে এই নির্যাতন। পরে মেয়েটির শরীরে অস্বাভাবিকত্ব নজরে...