1439904381
মাঠে উপস্থিত ৩০ হাজার দর্শক, আর মাঠের বাইরে ১৬ কোটি বাঙালিকে হতাশ করেনি বাংলার কিশোর ফুটবলাররা। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবল টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসরের শিরোপা নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনাল ম্যাচটি নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলের সমতায় শেষ হয়। ফলে ফাইনালটি গড়ায় ট্রাইব্রেকারে। সেই ট্রাইব্রেকারে ৪-২ গোলে বিজয় নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। ফলে দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবলে নতুন ইতিহাস রচনা করেছে বাংলাদেশের কিশোররা।

প্রথমার্ধ গোলশূন্যভাবে শেষ হওয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। প্রথম মিনিটেই মধ্যভাগের খেলোয়াড় ফাহিম মোর্শেদ এগিয়ে নেন বাংলাদেশ দলকে। অসাধারণ ফুটবল নৈপুণ্য দেখিয়ে চলা বাংলাদেশের ছেলেরা একের পর এক সুযোগ তৈরি করে। কিন্তু ভারতের প্রতিরোধের মুখে তারা সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেনি। কিন্তু ১৮ মিনিটে ভারতের মধ্যভাগের খেলোয়াড় অময় অভিনেষ ডি-বক্সের কর্নার থেকে অসাধারণ শটে সরাসরি বল পাঠিয়ে দেন বাংলাদেশ দলের জালে। সমতায় ফেরে ভারত।

এরপর থেকে আক্রমণ ও পাল্টা আক্রমণে খেলা চলছিল। অতিরিক্ত ৩ মিনিট দেয়া হলে প্রথম মিনিটেই ভারতের গোলবারের ডান দিক থেকে অসাধারণভাবে একটি বল নিয়ে জালে পৌঁছান সাদ। তবে সাইড লাইনের বাহির থেকে বল নিয়ে আসার কারণে রনির গোলটি হিসেবে আসেনি।

৬ টা ৫৭ মিনিটে বিদ্যুত্ বিভ্রাটের কারণে অন্ধকারে নিমজ্জিত হয় পুরো স্টেডিয়াম। ৭টা ৮ মিনিটে খেলা শুরু হলেও ১০ মিনিট পরেই রেফারির বাঁশি বেজে উঠে।
পরে ট্রাইব্রেকারে সিদ্ধান্ত হয়। ৫টি করে শট নেওয়ার কথা থাকলেও ৪র্থ শটে বাংলাদেশের জয় নিশ্চিত হয়ে যায়। আর ভারতের খেলোয়াড়দের নেওয়া ৪ টি শটের ২টি ফিরিয়ে দিতে সক্ষম হন বাংলাদেশের গোলরক্ষক ফয়সল আহমদ।
বাংলাদেশের পক্ষে গোল ৪টি করেন ফাহিম, সজীব, আতিক ও সাদ। আর ভারতের পক্ষে দু’টি গোল করেন বদলি খেলোয়াড় মেহের ও রাকিব।
এরআগে, সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে বিকেল ৫টা ৩ মিনিটে শিরোপার লড়াই শুরু হয়। বাংলাদেশ দল প্রথম থেকেই ভারতকে চেপে ধরে। কিন্‘ জালে বল জড়াতে পারেনি। প্রথমার্ধে বেশ ক’টি সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে তাদের। ভারতের রক্ষণভাগও শক্ত প্রতিরোধ গড়ে তুলে।
ভারতের খেলোয়াড়রাও কয়েকটি সুযোগ পেয়েছে। তারাও সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেনি।
দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটে গোল করলেও ৫, ২৬, ৩০, ৩৩ মিনিটে সুযোগ হাতছাড়া করে বাংলাদেশ দলের ছেলেরা। ৫ মিনিটে মধ্য মাঠ থেকে বল নিয়ে ভারতের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়ের বাঁধা অতিক্রমও করেন সাদ, কিন্‘ প্রতিপক্ষের গোলকিপারের বাঁধায় আর গোল পাননি তিনি।
৩৩ মিনিটে ফাহিম পেয়ে যান সুযোগ। প্রতিপক্ষের পেনাল্টি বঙ্রে ভেতরে ভারতের জালে পাঠানোর চেষ্টা করেন। কিন্‘ দ্রুতগতির শটটি গোলবার থেকে অনেক দূর দিয়ে অতিক্রম করে।
ফাইনালের সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক শাওন। আর টুর্ণামেন্ট সেরা হন আতিকুজ্জামান।
খেলা শেষে পুরষ্কার বিতরণ করেন ক্রীড়া উপ-মন্ত্রী আরিফ খান জয়, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট কাজী সালাহউদ্দিন, ভাইস প্রেসিডেন্ট সালাম মোর্শেদী, বাদল রায়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, বিসিবি’র পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সিলেট জেলা ক্রীড়া সংস’ার সাধারণ সম্পাদক ও ফুটবল এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট মাহিউদ্দিন আহমদ সেলিমসহ আরো অনেকে।
খবর বাসসের।

তুনতুন হাসানখেলাধুলা
মাঠে উপস্থিত ৩০ হাজার দর্শক, আর মাঠের বাইরে ১৬ কোটি বাঙালিকে হতাশ করেনি বাংলার কিশোর ফুটবলাররা। সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবল টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসরের শিরোপা নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ। মঙ্গলবার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনাল ম্যাচটি নির্ধারিত সময়ে ১-১ গোলের সমতায় শেষ হয়। ফলে ফাইনালটি গড়ায় ট্রাইব্রেকারে। সেই...