1440403285
জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবীর আবারো রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। সোমবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোসাদ্দেক মিনহাজ আহমেদ রিমান্ডের আদেশ দেন।

এদের মধ্যে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানার সোমবার দুপুর ২টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা এবং অ্যাডভোকেট মাহফুজ চৌধুরী বাপন ও অ্যাডভোকেট হাসানুজ্জামান লিটনের একই সময় থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা করে রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

এর আগে রবিবার সকালে চট্টগ্রামের একটি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন এই তিন আইনজীবী। বাঁশখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সাজ্জাদ হোসেনের খাস কামরায় সকাল ১০টা ৪০ মিনিট থেকে দুপুর ১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ১৬৪ ধারায় তাদের জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়।

লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, জবানবন্দিতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাসহ তিন আইনজীবী। মনিরুজ্জামান ডনসহ কয়েকজনের অ্যাকাউন্টে টাকা দেয়ার কথা তারা স্বীকার করেছেন। মনিরুজ্জামান ডন জঙ্গি সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেডের অর্থায়নকারী। হাটহাজারীর আবু বকর মাদ্রাসা এবং বাঁশখালী জঙ্গি সামরিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ডন অর্থ দিয়েছেন।

তবে শাকিলা আদালতকে জানিয়েছেন, তিনি ডনের পরিচয় জানেন না। তিনি হেফাজতে ইসলামের মামলা পরিচালনা করতেন। মামলা সংক্রান্ত কিছু টাকা তিনি ফেরত দিয়েছেন।

জবানবন্দির পর তিন আইনজীবীর জামিনের জন্য আবেদন করেন তাদের আইনজীবীরা। আদালত এ আবেদন না মঞ্জুর করে। আসামিপক্ষের আইনজীবীরা আসামিদের কারাগারে ডিভিশন দেয়ার আবেদন করলে কারাবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আদালত নিদের্শনা প্রদান করেন।

এদিকে তিন আইনজীবীকে হাটহাজারী থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে দায়ের হওয়া একটি মামলায় গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করেছে র‌্যাব।

২৩ ফেব্রুয়ারি হাটহাজারীর মাদ্রাসাতুল আবু বকর নামে একটি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে জঙ্গি সন্দেহে ১২ জন আটকসহ বিভিন্ন প্রশিক্ষণ সামগ্রী উদ্ধারের ঘটনায় স্থানীয় থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে এই মামলাটি দায়ের করা হয়।

উল্লেখ্য, শহীদ হামজা ব্রিগেডকে অর্থায়নের অভিযোগে গত মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকা থেকে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানাসহ তিন আইনজীবীকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তাদের বিরুদ্ধে শহীদ হামজা ব্রিগেডকে ১ কোটি ৮ লাখ টাকা দেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে। গ্রেফতার তিনজনকে চট্টগ্রামের বাঁশখালীর লটমনি পাহাড় থেকে অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করে সাত দিনের রিমান্ড চাওয়া হলে আদালত চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শেষে তিন আইনজীবীকে গতকাল পুনরায় আদালতে উপস্থিত করা হলে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

প্রসঙ্গত, এ বছর ১৯ ফেব্রুয়ারি হাটহাজারী এলাকায় আল মাদ্রাসাতুল আবু বকর নামে একটি ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে ১২ জনকে আটক করে র‌্যাব। পরে তাদেরকে জঙ্গি সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেডের সদস্য হিসেবে শনাক্ত করে হাটহাজারী থানায় সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা হয়। মাদ্রাসাটিকে হামজা ব্রিগেডের তাত্ত্বিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র হিসেবে দাবি করে র‌্যাব। এরপর ২১ ফেব্রুয়ারি বাঁশখালীর লটমনি পাহাড় থেকে বিপুল অস্ত্রশস্ত্র ও সামরিক প্রশিক্ষণ সরঞ্জামসহ ৫ জনকে এবং ২৮ ফেব্রুয়ারি নগরীর হালিশহর থানার একটি আবাসিক এলাকা থেকে চারজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

গত ১২ এপ্রিল রাতে নগরীর কোতোয়ালি থানার মিডটাউন আবাসিক হোটেলে অস্ত্র কেনাবেচার সময় বিক্রেতা মোজাহের হোসেন মিয়া এবং বাঁশখালীতে জঙ্গি প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সাব্বির আহমেদ ওরফে মুহিবকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ওইদিন রাতে আকবর শাহ থানার একে খান মোড়ে একটি বাস কাউন্টার থেকে মো. কামাল উদ্দিন ওরফে মোস্তফা এবং আশরাফ আলীম ওরফে আদনানকে আটক করা হয়।

গত ৭ মাসে কথিত জঙ্গি সংগঠন শহীদ হামজা ব্রিগেডের বিরুদ্ধে ৮টি অভিযান পরিচালনা করে ৩২ জনকে গ্রেফতার ছাড়াও বিপুল অস্ত্রশস্ত্র, বিস্ফোরক, বোমা তৈরির সরঞ্জাম ও সামরিক প্রশিক্ষণ সরঞ্জাম উদ্ধার করে র‌্যাব। গ্রেফতার ৩২ জনের মধ্যে ৩১ জনই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। হামজা ব্রিগেডের বিরুদ্ধে অভিযানের ঘটনায় নগরী ও জেলার চার থানায় সন্ত্রাস দমন ও অস্ত্র আইনে পাঁচটি মামলা হয়েছে। সবগুলো মামলাই তদন্তের পর্যায়ে রয়েছে বলে র‌্যাব জানায়।

ওয়াজ কুরুনীপ্রথম পাতা
জঙ্গি অর্থায়নের অভিযোগে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবীর আবারো রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। সোমবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোসাদ্দেক মিনহাজ আহমেদ রিমান্ডের আদেশ দেন। এদের মধ্যে ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানার সোমবার দুপুর ২টা থেকে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা এবং অ্যাডভোকেট মাহফুজ চৌধুরী বাপন ও অ্যাডভোকেট হাসানুজ্জামান লিটনের একই সময় থেকে...