image_164156
বোমার টুকরো মাথায় নিয়ে জন্মাল যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার আলেপ্পোয় জন্মাল এক শিশু। অ্যালেপ্পোর হাসপাতালে সফল অস্ত্রোপচারের পর সুস্থ রয়েছে মা ও শিশু। শিশুটির নাম রাখা হয়েছে আমেল। যার অর্থ, আশা। শিশুটির মায়ের নাম আমিরা বিবি।

যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় ২০১৪ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর তীব্র বিস্ফোরণের মুখে পড়েন অন্তঃস্বত্বা আমিরা বিবি। ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে গুরুতর জখম হন তিনি। একই সঙ্গে আহত হয় তাঁর তিন সন্তান। সঙ্কটজনক অবস্থায় তাকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

চিকিৎসার পর সকলেই হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে ঘরে ফেরেন। যথা সময়ে এক কন্যা সন্তানের জন্ম দেন আমিরা। কিন্তু ভূমিষ্ঠ শিশুকে দেখে চমকে ওঠেন চিকিত্‍সক ও নার্সরা। দেখা যায়, শিশুটির কপালে গেঁথে রয়েছে বোমার টুকরো। আসলে বিস্ফোরণে ক্ষেপণাস্ত্রের খুদে অংশ আমিরার শরীরে প্রবেশ করে সরাসরি ভ্রূণের ভিতরে সেঁটে যায়।

তড়িঘড়ি অস্ত্রোপচার করে সদ্যজাতের কপাল থেকে বোমার টুকরোটি বের করতে সফল হয়েছেন চিকিৎসকরা।

সিরিয়ার মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য মোহাম্মদ তাব্বা জানিয়েছেন, ‘জন্মের আগেই তাকে নিশানা করা হয়েছিল! পরিস্থিতি দেখে এমনই মনে হওয়া স্বাভাবিক। আশা করি শিশুটির ভবিষ্যত্‍ অন্তত সুন্দর হবে।’

চিকিৎসকরা জানান, মা শিশুটিকে, নাকি শিশুটি মাকে বাঁচিয়ে দিয়েছে তা বোঝা যাচ্ছে না। তবে ভয়ংকর ওই বোমার টুকরোটি মা-শিশু দুজনকেই মেরে ফেলতে পারতো। চিকিৎসকদের প্রচেষ্টায় আমিরা ও তার শিশু হয়তো বেঁচে গেল। খবর: দ্যা গার্ডিয়ান

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/image_164156.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/image_164156-300x300.jpgঅর্ণব ভট্টআন্তর্জাতিক
বোমার টুকরো মাথায় নিয়ে জন্মাল যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার আলেপ্পোয় জন্মাল এক শিশু। অ্যালেপ্পোর হাসপাতালে সফল অস্ত্রোপচারের পর সুস্থ রয়েছে মা ও শিশু। শিশুটির নাম রাখা হয়েছে আমেল। যার অর্থ, আশা। শিশুটির মায়ের নাম আমিরা বিবি। যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় ২০১৪ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর তীব্র বিস্ফোরণের মুখে পড়েন অন্তঃস্বত্বা আমিরা বিবি।...