law_92677
বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন বুধবার। আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বার কাউন্সিলে প্রতি তিন বছর পরপর নির্বাচন হয়ে থাকে। ইতিমধ্যে নির্বাচনের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

এবারের নির্বাচনে ১৪টি সদস্য পদে ৬১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থী ও প্যানেলের পক্ষে ভোটারদের প্রচার সোমবার শেষ হয়েছে। দেশের জেলা আইনজীবী সমিতিগুলোতে গিয়ে প্রার্থীরা সভা করে ভোট চান। সংশোধিত ভোটার তালিকা অনুযায়ী নির্বাচনে সারাদেশে ৪৪ হাজার ৩০২ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে স্থাপিত ভোটকেন্দ্র, প্রতিটি জেলা আদালত প্রাঙ্গণে স্থাপিত ভোটকেন্দ্র এবং বাজিতপুরসহ ১২টি উপজেলার দেওয়ানি আদালত প্রাঙ্গণে ভোট গ্রহণ করা হবে।

সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে। কেন্দ্রগুলোতে সব দেওয়ানি আদালতের বিচারকরা প্রিসাইডিং অফিসারের দায়িত্ব পালন করবেন।

বার কাউন্সিলের সচিব (জেলা দায়রা জজ) মোহাম্মদ আলতাফ হোসাইন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, শনিবার নির্বাচনী সব সরঞ্জাম প্রত্যেক কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। আশা করছি, সারাদেশের ৭৭টি কেন্দ্রে ভোটাররা মনোরম পরিবেশে ভোট দিতে পারবেন।

আসন্ন নির্বাচনে ১৪ জন সদস্যের মধ্যে সারাদেশে সনদপ্রাপ্ত আইনজীবীদের ভোটে সাধারণ আসনে ৭ জন এবং দেশের ৭টি অঞ্চলের স্থানীয় আইনজীবী সমিতির সদস্যদের মধ্য থেকে একজন করে মোট ৭ জন নির্বাচিত হবেন।

সাধারণ আসনে ৭ জন সদস্যের বিপরীতে ৩২ জন এবং ৭টি অঞ্চলের স্থানীয় আইনজীবী সমিতির ৭টি সদস্য পদে মোট ২৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

৭টি অঞ্চল হচ্ছে : ‘গ্রুপ এ’-সাবেক বৃহত্তর ঢাকা জেলার সব আইনজীবী সমিতি; ‘গ্রুপ বি’-বৃহত্তর ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, ফরিদপুর জেলার আইনজীবী সমিতি; ‘গ্রুপ সি’-বৃহত্তর চট্টগ্রাম ও নোয়াখালী জেলার আইনজীবী সমিতি; ‘গ্রুপ ডি’-বৃহত্তর কুমিল্লা জেলা ও সিলেট জেলা অঞ্চলের আইনজীবী সমিতি; ‘গ্রুপ এফ’- বৃহত্তর খুলনা, বরিশাল ও পটুয়াখালী অঞ্চলের আইনজীবী সমিতি; ‘গ্রুপ এইচ’-বৃহত্তর রাজশাহী, যশোর ও কুষ্টিয়া অঞ্চলের আইনজীবী সমিতি এবং ‘গ্রুপ জি’-বৃহত্তর দিনাজপুর, রংপুর, বগুড়া ও পাবনা জেলার আইনজীবী সমিতি।

সাধারণ আসনে ৭টি পদে ও অঞ্চলভিত্তিক ৭টি পদে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সমমনা আইনজীবী সংগঠন সমর্থিত ‘সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ’ এবং বিএনপির নেতৃত্বে সমমনা আইনজীবীদের সমর্থিত ‘জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল’ রয়েছে। এছাড়াও আরও প্রার্থী এ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ : সিনিয়র আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামের নেতৃত্বে সাধারণ আসনে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ সমর্থিত অপর প্রার্থীরা হলেন-ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদ, অ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার, আবদুল মতিন খসরু, পরিমল চন্দ্র গুহ, জেড আই খান পান্না এবং শ. ম, রেজাউল করিম।

জাতীয়তাবাদী ঐক্য প্যানেল : সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেনের নেতৃত্বে সাধারণ আসনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের অপর প্রার্থীরা হলেন-ব্যারিস্টার এ. জে মোহাম্মদ আলী, এএম মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, মো. বোরহান উদ্দিন ও মহসিন মিয়া।

আইনজীবী ঐক্য ফ্রন্ট : অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীর নেতৃত্বে আইনজীবী ঐক্য ফ্রন্টের অপর প্রার্থীরা হলেন-শাহ মো. খসরুজ্জামান, একেএম জগরুল হায়দার আফ্রিক, আবদুল মোমেন চৌধুরী, সারওয়ার-ই দীন, মো. হেলালউদ্দিন ও শামসুল হক।

আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থার বার কাউন্সিলের মোট ১৫ জন সদস্যের মধ্যে ১৪ জন আইনজীবীর সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়ে থাকেন। ১৪ জনের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে একজন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন।

নৃপেন পোদ্দারজাতীয়
বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচন বুধবার। আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বার কাউন্সিলে প্রতি তিন বছর পরপর নির্বাচন হয়ে থাকে। ইতিমধ্যে নির্বাচনের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। এবারের নির্বাচনে ১৪টি সদস্য পদে ৬১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। প্রার্থী ও প্যানেলের পক্ষে ভোটারদের প্রচার সোমবার শেষ হয়েছে। দেশের জেলা আইনজীবী সমিতিগুলোতে গিয়ে...