1441016239
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে নিহত বাংলাদেশি কিশোরী ফেলানী হত্যায় ক্ষতিপূরণ বাবদ ৫ লাখ রুপি প্রদানের সুপারিশ করেছে ভারতের মানবাধিকার কমিশন। সোমবার কমিশনের এক আদেশে বাংলাদেশস্থ ভারতীয় হাইকমিশনের মাধ্যমে বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর ফেলানী হত্যার ঘটনায় তার পরিবারকে এই অর্থ প্রদানে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারকে সুপারিশ করে। ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফেলানী হত্যা মামলায় বাংলাদেশ পক্ষের আইনজীবি এবং কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন।

ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলাম নুরু এই সুপারিশের প্রতিক্রিয়ায় ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, আর্থিকভাবে ক্ষতিপূরণ দিয়ে তো আর মেয়েকে ফিরে পাব না। তাই আমার মেয়ে ফেলানীকে অমিয় ঘোষ যে কষ্ট দিয়ে গুলি করে হত্যা করেছে, আগে তার বিচার চাই। আত্মস্বীকৃত খুনি অমিয় ঘোষের মৃত্যুদণ্ড চাই। ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছিলাম ঠিকই, তবে আগে হত্যার বিচার হতে হবে। বাবা হিসাবে আমার শেষ ইচ্ছে, মেয়ে ফেলানী হত্যার বিচার দেখে যেতে চাই। তা না হলে মেয়ের আত্মাও শান্তি পাবে না।

কুড়িগ্রামের পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাড. আব্রাহাম লিংকন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, বাংলাদেশস্থ ভারতীয় হাই কমিশনের মাধ্যমে ফেলানী হত্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে ৫ লক্ষ রুপি প্রদানের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে সুপারিশ করেছে ভারতের মানবাধিকার কমিশন। এর মধ্যেদিয়ে প্রাথমিকভাবে একটি সত্য প্রতিষ্ঠিত হল যে, ভারতীয় বিএসএফ মানবাধিকার লঙ্ঘন করে নির্মমভাবে ফেলানীকে হত্যা করেছে। যার কারণে ক্ষতি পুষিয়ে দেয়ার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে আর্থিক ক্ষতিপুরণের নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

ওয়াজ কুরুনীআন্তর্জাতিক
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে নিহত বাংলাদেশি কিশোরী ফেলানী হত্যায় ক্ষতিপূরণ বাবদ ৫ লাখ রুপি প্রদানের সুপারিশ করেছে ভারতের মানবাধিকার কমিশন। সোমবার কমিশনের এক আদেশে বাংলাদেশস্থ ভারতীয় হাইকমিশনের মাধ্যমে বহুল আলোচিত চাঞ্চল্যকর ফেলানী হত্যার ঘটনায় তার পরিবারকে এই অর্থ প্রদানে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারকে সুপারিশ করে।...