migrants_96703
মিয়ানমার উপকূল থেকে উদ্ধার ১৫৯ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া বিরূপ আবহাওয়ার কারণে স্থগিত করা হয়েছে। কক্সবাজার বিজিবি ১৭ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. রবিউল ইসলাম আজ সকালে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, ‘তাদের ফিরিয়ে আনতে আজ সকাল সাড়ে ১০টায় মিয়ানমারের ঢেকিবুনিয়ায় বিজিবি ও মিয়ানমার ইমিগ্রেশনের পতাকা বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ঘূর্ণিঝড়ের কারণে তা স্থগিত করা হয়েছে।’ দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে আবার কখন পতাকা বৈঠক হবে তা পরে জানানো হবে বলে জানান তিনি।

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেন’ উপকূলের দিকে এগিয়ে আসায় কক্সবাজার এবং চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরে ৭ নম্বর বিপদ সঙ্কেত জারি হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টি আজ বিকাল নাগাদ চট্টগ্রাম-কক্সবাজার এলাকা দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে।

গত ২১ মে মিয়ানমার উপকূল থেকে পাচারকারীদের নৌকা থেকে ২০৮ জন এবং ২৯ মে ৭২৭ জনকে উদ্ধার করে দেশটির নৌবাহিনী। এর মধ্যে ৮ জুন, ১৯ জুন ও ২২ জুলাই তিন দফায় দেশে ফেরত আনা হয় ৩৪২ জন বাংলাদেশিকে।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার (আইওএম) ন্যাশনাল প্রোগাম অফিসার আসিফ মুনীর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, নতুন করে যে ১৫৯ জনকে বাংলাদেশি হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে তাদের বাড়ি বিভিন্ন জেলায়।

এর মধ্যে নরসিংদীর ৮০, চট্টগ্রামের ১৮, হবিগঞ্জের ১৭, কিশোরগঞ্জের ১৩, নারায়ণগঞ্জের ১২, ফরিদপুরের ১২, শরীয়তপুরের ৩, নওগাঁর ২, নাটোরের ১ ও বরিশালের ১ জন রয়েছেন। অপ্রাপ্ত বয়স্ক রয়েছে ১৬ জন। তাদেরকে ফেরত আনার পর বাড়ি পৌঁছে দেওয়া পর্যন্ত আইওএমের পক্ষ থেকে সকল ধরনের মানবিক সাহায্য দেওয়া বলেও জানান তিনি।

কংকা চৌধুরীশেষের পাতা
মিয়ানমার উপকূল থেকে উদ্ধার ১৫৯ বাংলাদেশিকে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া বিরূপ আবহাওয়ার কারণে স্থগিত করা হয়েছে। কক্সবাজার বিজিবি ১৭ ব্যাটালিয়ানের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. রবিউল ইসলাম আজ সকালে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, 'তাদের ফিরিয়ে আনতে আজ সকাল সাড়ে ১০টায় মিয়ানমারের ঢেকিবুনিয়ায় বিজিবি ও মিয়ানমার ইমিগ্রেশনের পতাকা বৈঠক হওয়ার কথা ছিল।...