1441103556
বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, দেশের সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন এবং বাংলাদেশের ট্যুরিস্ট এরিয়াগুলোকে পর্যটক আকর্ষণীয় করে তুলতে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ জরুরি।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির নানা সংস্কৃতি রয়েছে। এগুলোকে পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করতে পারলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। তাই পর্যটন কেন্দ্রগুলোকে পর্যটক আকর্ষণীয় করে তুলতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ, দপ্তর ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বয়ে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। এ লক্ষ্যে সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করছে।’

মঙ্গলবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত এক কর্মশালায় এসব কথা বলেন তিনি।

আগামী ২৭-২৮ অক্টোবর ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য ‘বুদ্ধিষ্ট হেরিটেজ সার্কিট ট্যুরিজম’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের প্রস্তুতিমূলক এ কর্মশালায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন বিষয়ক সচিব খোরশেদ আলম চৌধুরী, বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান ড. অপরূপ চৌধুরী এবং বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার আখতারুজ্জামান খান কবির।

বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় বৌদ্ধ পূরাকীর্তি, স্থাপত্য, ঐতিহাসিক নিদর্শন, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যসমূহ এবং দেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের লিভিং বুদ্ধিষ্ট হেরিটেজসমূহ বিশ্বের কাছে তুলে ধরার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এ কর্মশালা আয়োজন করে।

এ কর্মশালা থেকে প্রাপ্ত তথ্যসমূহের ভিত্তিতে উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণের লক্ষ্যে একটি সুপারিশ প্রণয়ন করা হবে। আগামী ২৭-২৮ অক্টোবর ঢাকায় অনুষ্ঠেয় আন্তর্জাতিক সম্মেলনে এ সুপারিশমালা উপস্থাপন করা হবে। এ লক্ষ্যে কর্মশালায় চারটি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। প্রবন্ধসমূহে বৌদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, পুরাকীর্তি ও লিভিং হেরিটেজসমূহের বর্তমান অবস্থা, চ্যালেঞ্জ, প্রতিকার, সম্ভাবনা ও পর্যটন সম্পর্কিত গুরুত্ব উপস্থাপন করা হয়।

রাশেদ খান মেনন বলেন, দেশে অনেক স্থাপত্য কীর্তি রয়েছে, যা সহজেই পর্যটক আকর্ষনীয় হয়ে উঠতে পারে। কিন্তু আমাদের দেশে পর্যটন সংস্কৃতি গড়ে না ওঠায় আমাদের এই অমূল্য সম্পদ আমরা কাজে লাগাতে পারছিনা। উপরন্তু স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে এ সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারনা থাকায় পর্যটকদের নিরাপত্তার অভাব ঘটছে। তিনি ট্যুরিজম সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে সচেতন করে তুলতে সরকারের পাশাপাশি প্রাইভেট অপারেটর ও গণমাধ্যমকে সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় গণমাধ্যমসহ সব স্টেকহোল্ডরদের নিয়ে একটি ‘টাস্কফোর্স’ গঠনের সুপারিশ করেন। তিনি বলেন, একটি সমন্বিত উদ্যোগ হিসেবে এই টাস্কফোর্স পর্যটন শিল্পের উন্নয়নে বাধাসমূহ চিহ্নিত করবে এবং সমাধানের উপায় খুঁজে বের করবে। তিনি এ ব্যাপারে প্রাইভেট সেক্টরকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান।

সুরুজ বাঙালীজাতীয়
বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, দেশের সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন এবং বাংলাদেশের ট্যুরিস্ট এরিয়াগুলোকে পর্যটক আকর্ষণীয় করে তুলতে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ জরুরি। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির নানা সংস্কৃতি রয়েছে। এগুলোকে পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন করতে পারলে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন...