1442224800
পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বাসে বসাকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে শিক্ষকসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন।

রবিবার রাতে বরিশাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গামী একটি বাসে সি এস ই ৮ম সেমিষ্টারের রাতুল, আরিফ এবং কামরুলের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে এম কেরামত আলী হলের ছাত্ররা রাত ১০টার দিকে শের-ই-বাংলা হলের ছাত্রদের আক্রমন করে। এ সংঘর্ষ বরিশাল ও পটুয়াখালী দুই গ্রুপের রূপ নেয়। রাতে শের-ই-বাংলা হলে প্রায় দুই ঘণ্টা সংঘর্ষ চলে। এ সময় হলের বিভিন্ন রুমে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ ও পুলিশের উপস্থিতিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োটেকনোলজি বিভাগের শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম শান্ত এবং শিক্ষার্থী অভি, মুন্না, ইমন, আরিফ, রাতুল, কামরুল, ফাহিমসহ ১৫ জন আহত হয় বলে জানিয়েছে হেলথ কেয়ার সেন্টার। রাত ২টার পরে দুমকি থানা পুলিশ হলে তল্লাশি চালায়।
সোমবার সকালে পটুয়াখালী গ্রুপের ছাত্ররা এম কেরামত আলী হলে আক্রমন চালিয়ে কয়েকটি ল্যাপটপ ভাংচুর করে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. আনিসুজ্জামান আনিস ও সাধারণ সম্পাদক মো. রায়হান আহমেদ রিমন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা দুই পক্ষ বিভক্ত হয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। তবে এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।’

বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তবে এখনও দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

ওয়াজ কুরুনীস্বদেশের খবর
পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বাসে বসাকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির জেরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে শিক্ষকসহ ১৫ জন আহত হয়েছেন। রবিবার রাতে বরিশাল থেকে বিশ্ববিদ্যালয়গামী একটি বাসে সি এস ই ৮ম সেমিষ্টারের রাতুল, আরিফ এবং কামরুলের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। পরে এম কেরামত আলী হলের ছাত্ররা রাত ১০টার...