1439378761
চেক জালিয়াতির মামলায় (এনআই অ্যাক্ট) ভুল আদেশ দেয়ায় নিম্ন আদালতের এক বিচারককে সতর্ক করে বুধবার আদেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ বিষয়ে দায়ের করা এক রিভিশন আবেদনের শুনানি করে এ আদেশ দেয়। এ বিচারক হলেন চট্টগ্রাম মহানগর তৃতীয় আদালতের বিচারক জামিউল হায়দার। একইসঙ্গে এনআই অ্যাক্ট’র ওই মামলায় আসামিকে দেয়া ৩০ লাখ টাকা জরিমানা ও ৬ মাসের সাজা বাতিল করে দিয়েছে হাইকোর্ট।

৩০ লাখ টাকার চেক প্রতারণার অভিযোগে ঢাকার মতিঝিলের আলম এন্টারপ্রাইজের মালিক শাহ আলম চৌধুরীর বিরুদ্ধে ২০০৯ সালে চট্টগ্রাম আদালতে মামলা করেন মঈন উদ্দিন নামের এক ব্যবসায়ী। পরে শাহ আলম হাইকোর্টে মামলা বাতিল চেয়ে আবেদন করলে ২০১০ সালের ২৯ অক্টোবর হাইকোর্ট মামলার কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ দেয় এবং রুলও জারি করে। এ স্থগিতাদেশ থাকা অবস্থায় চলতি বছরের ২৫ মে চট্টগ্রাম মহানগর তৃতীয় আদালতের বিচারক জামিউল হায়দার এনআই অ্যাক্ট মামলায় শাহ আলমকে ৩০ লাখ টাকা জরিমানা এবং ছয় মাসের কারাদন্ড দেয়।

নিম্ন আদালতের দেয়া আদেশের বিরুদ্ধে শাহ আলম বাদী হয়ে হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন দায়ের করেন। শাহ আলমের পক্ষে রিভিশন আবেদনটি দায়ের করেন এডভোকেট আবেদ রাজা। আদালতে এ আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র আইনজীবী এডভোকেট আব্দুল মতিন খসরু।

এডভোকেট আবেদ রাজা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, নিম্ন আদালতে মামলার ওপর হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকার পরও ওই আদালত রায় দেয়। এ কারণে হাইকোর্ট ওই বিচারককে সতর্ক করে এনআই অ্যাক্ট মামলায় রায় বাতিল করে আদেশ দেয়।

ওয়াজ কুরুনীজাতীয়
চেক জালিয়াতির মামলায় (এনআই অ্যাক্ট) ভুল আদেশ দেয়ায় নিম্ন আদালতের এক বিচারককে সতর্ক করে বুধবার আদেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ বিষয়ে দায়ের করা এক রিভিশন আবেদনের শুনানি করে এ আদেশ দেয়। এ বিচারক হলেন চট্টগ্রাম মহানগর...