1440869474
নাটোরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শনিবার সদর উপজেলার তেবাড়িয়ায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় রাজিব ও নাজমুল নামে দুই যুবলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। পরে এক জনপ্রতিনিধির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ কয়েকটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

স্থানীয়রা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, শহরের স্টেশনবাজার একতার মোড়ে সদর থানা যুবলীগ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মরণে শোকসভার আয়োজন করে। বিকাল ছয়টার দিকে তেবাড়িয়া এলাকার আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে ওই সমাবেশে রওনা হন। এ সময় তারা রিংকু নামে স্থানীয় এক ছাত্রদল কর্মীকে দেখতে পেয়ে ধাওয়া করেন। খবর পেয়ে স্থানীয় বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদল নেতাকর্মীরা সংঘবদ্ধ হয়ে এগিয়ে এলে দুই দলের মধ্যে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। এতে গুলিবিদ্ধ যুবলীগ নেতা রাজিবকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং নাজমুলকে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাজিবের অবস্থা আশংকাজনক বলে চিকিত্সকরা জানিয়েছেন। রাজিব একই এলাকার হুগোলবাড়িয়া মহল্লার আমিনের ছেলে এবং নাজমুল তেবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নাদের হোসেনের ছেলে।

এ ঘটনার পর পর আওয়ামী লীগ কর্মী-সমর্থকরা ক্ষুব্ধ হয়ে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা ও সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফয়সাল হোসেন আবুলের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ কয়েকটি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়।

বাহাদুর বেপারীপ্রথম পাতা
নাটোরে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শনিবার সদর উপজেলার তেবাড়িয়ায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় রাজিব ও নাজমুল নামে দুই যুবলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। পরে এক জনপ্রতিনিধির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ কয়েকটি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। স্থানীয়রা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে ...