DHARSON-1
দুই নেপালি নারীকে ধর্ষণ করার দায়ে অভিযুক্ত সৌদি কূটনীতিকের সমালোচনায় ভারতের শিক্ষাবিদরা। তাঁদের দাবি তিনি যদি সত্যিই অপরাধী হন, তাহলে শুধু এফআইআর নয়, কূটনীতিকরা যে রক্ষাকবচ পেয়ে থাকেন, তাও তাঁর থেকে ফিরিয়ে নেওয়া উচিত।
কূটনীতিকরা একধরণের রক্ষাকবচ উপভোগ করেন, যার জন্যে তাঁদের কখনও গ্রেপ্তার বা আটক করা যায় না। এই সুবিধার সাহায্যেই তাঁরা যেকোনও দেশে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারেন। কিন্তু যদি কোনও কূটনীতিকের বিরুদ্ধে কোনও গুরুতর অভিযোগ থাকে, বা সেই ব্যক্তির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা থাকে তাহলে তিনি আর এই বিশেষ সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন না। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত একটি এফআইআর-ই দায়ের করা হয়েছে, যেখানে সৌদি কূটনীতিকের নামও উল্লেখ করা হয়নি।
এই ঘটনায় সৌদি কূটনীতিকের কড়া সাজার দাবি তুলেছেন বিভিন্ন শিক্ষাবিদরা। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, ইগনুর প্রো ভিসি সুষমা যাদব, দিল্লির বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা এবং পর্বতারোহী সন্তোষ যাদব ও বেশ কয়েকজন আইনজীবী।
এই শিক্ষাবিদদের দাবি, পুলিশ কমিশনারের এই ঘটনায় শুধু এফআইআর দায়ের করেই থেমে যাওয়া উচিত নয়। তাঁর এই ঘটনায় সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ তদন্ত করা উচিত এবং অভিযুক্তের উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করা উচিত।
সম্প্রতি গুরগাঁও-এ শহর থেকে দূরে একটি ফ্ল্যাটে দুই নেপালি নারীকে বন্দি করে রেখে অভিযুক্ত সৌদি কূটনীতিক ও তাঁর অতিথিরা ধর্ষণ করেন। পরে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের হস্তক্ষেপে গুরগাঁও পুলিশ আক্রান্ত দুই নেপালি নারীকে উদ্ধার করে। পরে এই ঘটনায় একটি এফআইআর দায়ের করা হয়, যদিও সেখানে কারর নাম উল্লেখ করা হয়নি। সূত্র : এবিপি

নৃপেন পোদ্দারপ্রথম পাতা
দুই নেপালি নারীকে ধর্ষণ করার দায়ে অভিযুক্ত সৌদি কূটনীতিকের সমালোচনায় ভারতের শিক্ষাবিদরা। তাঁদের দাবি তিনি যদি সত্যিই অপরাধী হন, তাহলে শুধু এফআইআর নয়, কূটনীতিকরা যে রক্ষাকবচ পেয়ে থাকেন, তাও তাঁর থেকে ফিরিয়ে নেওয়া উচিত। কূটনীতিকরা একধরণের রক্ষাকবচ উপভোগ করেন, যার জন্যে তাঁদের কখনও গ্রেপ্তার বা আটক করা যায় না। এই...