image_250396.a
অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত চলাকালেই নৌবাণিজ্য অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তাকে পদোন্নতির সুপারিশ করেছে সুপ্রিয়র সিলেকশন বোর্ড (এসএসবি)। এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে নিরাপদ নৌপথ আন্দোলন নামে একটি সংগঠন। সংগঠনটির পক্ষ থেকে নৌনিরপাত্তার স্বার্থে ওই সুপারিশ বাতিলের দাবি জানানো হয়েছে।

গত মঙ্গলবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির কাছে সংগঠনের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগে বলা হয়, প্রায় দুই বছর নৌবাণিজ্য অধিদপ্তরে প্রিন্সিপাল অফিসারের (পিওএমএমডি) দায়িত্বে থাকা শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ১১ নভেম্বর নৌ, সড়ক ও রেলপথ রক্ষা জাতীয় কমিটির পক্ষ থেকে প্রমাণাদিসহ নৌপরিবহনমন্ত্রী বরাবর লিখিত অভিযোগ জমা দেওয়া হয়।

ওই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সমুদ্র পরিবহন অধিদপ্তর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে, যে কমিটির কার্যক্রম এখনও চলছে। অথচ ওই তদন্ত কমিটির রিপোর্ট প্রকাশের আগেই এসএসবির মাধ্যমে তাকে পদোন্নতির সুপারিশ করা হয়েছে। এ নিয়ে অনেকের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। এমনকি নৌনিরাপত্তা আন্দোলনের কর্মীদের পাশাপাশি অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যেও অসন্তোষ বিরাজ করছে।

সংগঠনের সদস্য সচিব শহীদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ওই অভিযোগে বলা হয়েছে, ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। যেখানে ওই কর্মকর্তার (পিওএমএমডি) ডকইয়ার্ড সুপারভিশন বাবদ মাসিক আয় প্রায় ছয় লাখ টাকা বলে প্রকাশ পেয়েছে।

সিনিয়র উপসচিব পদমর্যাদার একজন কর্মকর্তা বেতনের চেয়ে প্রায় ১২ গুণ বেশি সুপারভিশন ভাতা পাওয়ায় তা নিয়ে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুনীতির প্রমাণ রয়েছে। এ অবস্থায় তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত ওই কর্মকর্তার পদোন্নতি স্থগিত রাখতে সংসদীয় কমিটির হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।

শুভ সমরাটঅন্যান্য
অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ তদন্ত চলাকালেই নৌবাণিজ্য অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তাকে পদোন্নতির সুপারিশ করেছে সুপ্রিয়র সিলেকশন বোর্ড (এসএসবি)। এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে নিরাপদ নৌপথ আন্দোলন নামে একটি সংগঠন। সংগঠনটির পক্ষ থেকে নৌনিরপাত্তার স্বার্থে ওই সুপারিশ বাতিলের দাবি জানানো হয়েছে। গত মঙ্গলবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির কাছে সংগঠনের পক্ষ থেকে লিখিত...