5555555555555
রাশেদুল হাসান |
রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানাধীন রামচন্দ্রপুর মৌজার ১১৬ একর জমির উপর ১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠা লাভ করে ঢাকা উদ্যান আবাসিক এলাকা প্রতিষ্ঠার পর থেকে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান ‘‘ঢাকা উদ্যান বহুমুখী সমবায় সমিতি লি:’’ এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠতে থাকে। পরিকল্পিত আবাসিক এলাকার নেপথ্যে রয়েছে সরকারি জমি দখলের অভিযোগ। জানা যায় একসময় রামচন্দ্রপুর মৌজায় গড়ে উঠা ঢাকা উদ্যানের ভিতর দিয়ে বিভিন্ন খাল প্রবাহিত হয়ে, তুরাগ নদীর সাথে সংযোগ স্থাপন করতো। প্রায় ১৬ একর বিস্তৃত ছিল খালের সীমানা। কালক্রমে ঢাকা উদ্যানের কল্যাণে আজ সেখানে খালের কোন অস্তিত্ব খুজে পাওয়া প্রায় দুস্কর। আবাসিক এলাকা করতে গিয়ে সেইসব খাল, নালা, হালট দখলে নিয়ে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানের অসাধু কর্তা ব্যক্তিরা ভরাট করে, প্রবাহমাণ খালের উপরেই তৈরী করেছে আবাসিক প্লট।
আবাসিক এলাকার কর্তা ব্যক্তিরা রামচন্দ্রপুর মৌজার খাল নালা ভরাট করলেও নেয়নি সরকারে কোন পূর্বানুমতি। কোন প্রকার নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করেই একের পর এক খাল ভরাট করে প্লট ও বহুতল গার্মেন্টস শিল্পসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অস্তিত্ব লক্ষ্য করা যায়। সি.এস. ও আর.এস নকশায় দেখা যায় খালের চিত্র। অথচ ঢাকা উদ্যান আবাসিক প্রকল্পের নকশায় নেই খালের কোন অস্তিত্ব। সি.এস. ও আর.এস. নকশা অনুযায়ী দেখা যায় ২৪৫, ২৫০, ২৭৭, ২৯৩, ৩০৩, ৩১৪, ৩২৫, ৩২৮, ৩৩৩, ৪০৪, ৪১০, ৪৪৪, ৪৬৭, ৪৭৪, ৪৭৭, ৪৯৬ দাগে খাল বিদ্যমান। কোথায় গেল খাল ?
এসবের উত্তর খুঁজতে সরেজমিনে ঢাকা উদ্যানে গিয়ে জানা যায় চমকপ্রদ সব কাহিনী। ঢাকা উদ্যানে গড়ে উঠা বড় বড় অট্রালিকা ও ভবন তৈরী করতে মানা হয়নি বিল্ডিংকোড এর কোন নীতিমালা। বর্তমান সরকার বেদখল হয়ে যাওয়া খাল-নালা পুনরুদ্ধারে বদ্ধ পরিকর। প্রধানমন্ত্রী হাতিরঝিল, বেগুনবাড়ী প্রকল্প উদ্বোধনের সময় বলেন, বুড়িগঙ্গা ও তুরাগ নদীর তীরে তিল তিল করে গড়ে উঠা ঢাকা মহানগরীর হারানো ঐতিহ্য পুনরুদ্ধারে সরকার বদ্ধপরিকর। নৌ-মন্ত্রীর সাথে কথা বললে মন্ত্রী দুঃখ করে বলেন স্থানীয় জনগন ভয়ে অভিযোগ করার সাহস পাচ্ছে না, তবে দখলদাররা যতই শক্তিশালী হোক আমরা সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে এগিয়ে যাবোই।
সরকারের এমন কঠিন সিদ্ধান্তের পরও বহাল তবিয়তে আছেন ঢাকা উদ্যানের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। রাজউক কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করে জানা যায়, তারা কয়েক দফা ঢাকা উদ্যান কর্তৃপক্ষকে বন্যা প্রবন এলাকায় মাটি ভরাটসহ নির্মাণ কাজ বন্ধ করার জন্য অনুরোধ করে চিঠি পাঠানোর পরও কিছুতেই যেন দমানো যাচ্ছে না এসব অনিয়মকারীদের। ভূমি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কিছু অসাধু কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ও অভিযোগ রয়েছে ঢাকা উদ্যান কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতা করার। পরিকল্পিত নগরীর দোহাই দিয়ে ঢাকা উদ্যান আবাসিক এলাকা প্রতিষ্ঠিত হলেও বাস্তবে নেই পরিকল্পনার কোন ছোঁয়া।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2016/04/5555555555555.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2016/04/5555555555555-300x225.jpgশুভ সমরাটপ্রথম পাতা
রাশেদুল হাসান | রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানাধীন রামচন্দ্রপুর মৌজার ১১৬ একর জমির উপর ১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠা লাভ করে ঢাকা উদ্যান আবাসিক এলাকা প্রতিষ্ঠার পর থেকে উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান ‘‘ঢাকা উদ্যান বহুমুখী সমবায় সমিতি লি:’’ এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠতে থাকে। পরিকল্পিত আবাসিক এলাকার নেপথ্যে রয়েছে সরকারি জমি দখলের অভিযোগ। জানা...